‘নতুন কমিশন ভালো কোম্পানি আনতে উদ্যোগ নিচ্ছে’

0
279
রকিবুর রহমান, ফাইল ছবি

সিনিয়র রিপোর্টার : পুঁজিবাজারের নবনিযুক্ত কমিশন সুশাসন প্রতিষ্ঠায় জোর দেবে বলে আশা ব্যক্ত করেছেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালক রকিবুর রহমান। তিনি বলেন, তার বিশ্বাস নতুন কমিশনের মাধ্যমে শেয়ারবাজার এগিয়ে যাবে।

শনিবার জুমের মাধ্যমে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে রকিবুর রহমান বলেন, শিবলী রুবাইয়াতের নেতৃত্বে কমিশন বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষায় কাজ করার জন্য দৃঢ়। তারা এরই মধ্যে ভালো ভালো কোম্পানি শেয়ারবাজারে আনার জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। এছাড়া ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে একটি সভা করেছে।

সভার ফলে তারল্য সংকট সমাধানে ব্যাংকগুলোকে বিনিয়োগে আনা ও ৩০ সেপ্টেম্বরের আগে লভ্যাংশ দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় শিথিলতার সম্ভাবনা তৈরি করা হয়েছে। এছাড়া এ কমিশন বন্ড মার্কেট উন্নয়নে উদ্যোগ নেয়া শুরু করেছে বলেও জানান রকিবুর রহমান।

তিনি বলেন, নবনিযুক্ত কমিশন কোনো ধরনের অনিয়মকে ছাড় দেবে না। এছাড়া সম্মিলিতভাবে উদ্যোক্তা/পরিচালকদের ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণ না করা কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে অতি শিগগিরই ব্যবস্থা নিবে বলে তিনি জানান।

বিনিয়োগকারীদের লেনদেন নিয়ে হতাশ না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে রকিবুর রহমান বলেন, গত ৩ জুন অনেক কম লেনদেন হওয়া নিয়ে লেখালেখি হয়েছে। কিন্তু এর পেছনে আবার লকডাউনের আতঙ্ক ও ফ্লোর প্রাইস কাজ করেছে। তিনি বলেন, শেয়ারবাজারে গত কয়েকদিনের লেনদেনের ৮৭ শতাংশ অনলাইনে হয়েছে।

ব্রোকারেজ হাউজগুলোতে এক-চতুর্থাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। চাইলে এ বাজারে ব্রোকারেজ হাউজে না গিয়ে শতভাগ লেনদেন করা সম্ভব। তাই ভবিষ্যতে ব্যাংক খোলা রেখে শেয়ারবাজার বন্ধ রাখা ঠিক হবে না। অতীতে যেটা হয়েছে, সেটা খুবই দুঃখজনক।

পৃথিবীর কোথাও নিয়ন্ত্রক সংস্থা সূচক ও লেনদেন ওঠা-নামায় হস্তক্ষেপ করে না জানিয়ে রকিবুর রহমান বলেন, অথচ বিগত কমিশনের সময়ে সেটা হয়েছে। বিমা কোম্পানিগুলোর কাছে অনেক টাকা আছে। তাদের টাকাগুলো ফিক্সড ডিপোজিটে ও বন্ডে চলে যায়। অথচ সেখানে রিটার্ন অনেক কম। মিউচুয়াল ফান্ডগুলোর অধিকাংশ টাকা এফডিআর। অথচ পৃথিবীব্যাপী মিউচুয়াল ফান্ডগুলো শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে। আমাদের দেশে বিনিয়োগ করার মতো অনেক ভালো ভালো কোম্পানি আছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অপ্রদর্শিত টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হবে। করোনা ভাইরাসের কারণে এই সুযোগ দেয়া হচ্ছে। তবে ওই অর্থ বিনিয়োগের জন্য কোনো সেক্টর নির্দিষ্ট করে দেয়া ঠিক হবে না। সবাইকে সবার সুবিধামতো সেক্টরে বিনিয়োগের সুযোগ দিতে হবে। এতে করে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ বাড়বে ও শেয়ারবাজারকে গতিশীল করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here