সিনিয়র রিপোর্টার : রংপুর ডায়েরি অ্যান্ড ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেড (আরডি ফুড) দ্বিমূখী সম্ভাবনার দুয়ারে হাঁটছে। সম্ভাবনার বিশেষ দুটি ঘোষণা শিগগিরই করবেন কোম্পানির কর্তৃপক্ষ। বাণিজ্য ভালো হওয়ায় কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) বৃদ্ধি এবং সভায় লভ্যাংশের পরিমাণ বৃদ্ধির সম্ভাবনা নিয়ে দুটি নিয়ে আসছে ঘোষণা।

একইসঙ্গে আরডি ফুডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে নতুন আরো একটি প্রতিষ্ঠান আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে, এমন আভাস মিলেছে।

রংপুরের শালাইপুকুরে কোম্পানি দুগ্ধজাত বিভিন্ন ধরণের পণ্য উৎপাদন করছে। পণ্যের মান ভালো হওয়ায় সারা দেশে বাণিজ্য বেশ ভালো হচ্ছে এবং হয়েছে। যে কারণে গত বছরের তুলনায় কোম্পানির বার্ষিক শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) এবং শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মুল্য (এনএভি) অনেকটা বাড়বে। কোম্পানির বিশেষ একটি সূত্র সম্প্রতি এমন তথ্য নিশ্চিত করে।

২০১৬ সালের কোম্পানির ১৮ মাসে শেয়ার প্রতি বার্ষিক আয় (ইপিএস) ছিল ৯২ পয়সা। এবারে সে হিসেবে সময় কম হলেও ইপিএস বৃদ্ধির সমূহ সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

রংপুরে বলদিপুকুরে (শালাইপুকুরে) কোম্পানির কারখানায় দুগ্ধজাত পণ্য উৎপাদন ও বাণিজ্য অনেক ভালো হয়েছে। এমন কথা বলেন রংপুর ডায়েরি অ্যান্ড ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম ফখর-উজ-জামান। রাজধানীর মোহাম্মদপুরে (শ্যামলীর পাশে) কোম্পানির নিজস্ব অফিসে সম্প্রতি কথা হলে চেয়ারম্যান বলেন, এবারে কোম্পানির পণ্য উৎপাদন এবং বাণিজ্য অনেক ভালো। গ্রাহক চাহিদার ভিত্তিতে নতুন অনেক পণ্যও আমরা তৈরি করেছি। গ্রাহক সমাদর সেসব পণ্যের বেশ বেড়েছে।

খোলামেলা আলোচনার সূত্র ধরে চেয়ারম্যান বলেন, কোম্পানির সব কিছু এখন অন্য ডিরেক্টররা দেখছেন। আমি চেয়ারম্যান হলেও অন্যকিছু নিয়ে এখন ব্যস্থ সময় পার করছি। যে কারণে ও দিকে দৃষ্টি দেয়ার ফুসরত হচ্ছেনা। তবে অনেক ভালো চলছে। সবার প্রত্যাশার একটু হলেও মেটানোর চেষ্টা আমাদের থাকবে।

কোম্পানির প্রোফাইল

কোম্পানির অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চলতি বছরের ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৫ পয়সা এবং এর আগের বছরে যা ছিল ৩৯ পয়সা।

সর্বশেষ ৩ মাসে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২৩ পয়সা এবং আগের বছরের একই সময়ে যা ছিল ১৬ পয়সা, যা প্রায় দ্বিগুণ বেড়েছে। ৩১ মার্চ, ২০১৭ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মুল্য (এনএভি) হয়েছে ১৬ টাকা ৬২ পয়সা। কোম্পানিটির সর্বশেষ ৬ মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর, ২০১৬) শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২২ পয়সা। যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৪ পয়সা।

সূত্র জানায়, বাণিজ্য ভালো হওয়ায় লভ্যাংশ ঘোষণার দিক থেকেও কোম্পানির কর্তৃপক্ষ বিগত দিনের ধারাবাহিকতা ভেঙে লভ্যাংশের পরিমাণ বাড়ার সম্ভাবনাও তৈরি করেছে।

উৎপাদন সম্পর্কে ও বিপণন সম্পর্কে কোম্পানির প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকর্তা (সিএফও) ইয়াসির আরাফাত বলেন, কোম্পানির উৎপাদন কমে শীতকালে। দুধ থেকেই আমাদের বেশিরভাগ পণ্য উৎপাদন করা হয়। আর বিভিন্ন ধরণের ফল থেকে যেসব জুস তৈরি করা হয়, তা বছর ভরে চলে। তবে কোম্পানির ‘ডাল সিজন’ শীতকালে।

তবে বিগত বছরের তুলনায় গতবারে উত্তরাঞ্চলে শীতের প্রকোপ অনেক কম ছিল। সাধারণ মানুষের গোয়াল ঘরের গাভী ভালো থাকলে আমাদের আশা জাগে। সাধারণ মানুষ আমাদের দুধ দিতে পারলে কোন সমস্যা হয়না। যেহেতু এবারে শীত ছিল কম, তাই আল্লাহর ইচ্ছায় ভালো হয়েছে। তবে আরো ভালো করার চেষ্টা করছি।

রংপুরের শালাইপুরে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের পাশে আমাদের ৯ একর জমির ওপর কারখান রয়েছে। কোম্পানির আরো অনেক পণ্য এখান থেকে উৎপাদন করা সম্ভব। আমাদের আরো জায়গা অব্যবহৃত রয়েছে।

কোম্পানির এজিএম নভেম্বর মাসে হবে বলে তিনি জানান। তার আগে কোম্পানির বোর্ডমিটিং চলতি সেপ্টেম্বর মাসের শেষে অথবা আগামী মাসের শুরুতে করা হবে। সভা থেকে বিশেষ ঘোষণাও করা হবে। তবে সংবেদনশীল তথ্য হওয়ায় তিনি আগাম কোন তথ্য প্রকাশ করতে রাজী হননি।

আরডি ফুডের শেয়ার দরের চিত্র। বুধবার দুপুরে ডিএসই থেকে নেয়া

অন্যদিকে, আরডি ফুডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে নতুন আরো একটি প্রতিষ্ঠান আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে কোম্পানির চেয়ার চেয়ারম্যান সেদিকে সময় ব্যয় করছেন। তবে কি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে তা এখনো প্রকাশ করা হয়নি। তবে শিগগিরই তা প্রকাশ করা হবে বলে আভাস মিলেছে।

প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে (জুলাই-সেপ্টেম্বর, ১৬) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৬ পয়সা। আগের বছর একই সময় কোম্পানিটি ইপিএস ছিল ১৪ পয়সা।

একই সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৬ টাকা  ৩৩ পয়সা। আর ৩০ জুন,২০১৬ পর্যন্ত সময়ে ছিল ১৬ টাকা ১৭ পয়সা।

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের কোম্পানি আরডি ফুডের পরিচালনা পর্ষদ২০১৬ সালে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ লভ্যাংশ বোনাস ঘোষণা করেছে। ১৮ মাসের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা শেষে এ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়েছে। কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯২ পয়সা। এর মধ্যে সর্বশেষ ৬ মাসে ইপিএস হয়েছে ৩১ পয়সা।

2 COMMENTS

dayal শীর্ষক প্রকাশনায় মন্তব্য করুন Cancel reply

Please enter your comment!
Please enter your name here