দেশবন্ধু গ্রুপ বিনিয়োগে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে : শিল্পমন্ত্রী

0
2081

সিনিয়র রিপোর্টার : শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, দেশবন্ধু গ্রুপ বিভিন্ন সেক্টরে বিনিয়োগ করে দেশে উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তারা নতুন-নতুন শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে দেশের উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রাখছে। বিশাল কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করেছে।

নরসিংদীর পলাশে অবস্থিত চরসিন্দুরে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব ফ্যাক্টরি প্রাঙ্গণে রোববার দুপুরে দেশবন্ধু ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেডের বাণিজ্যিক উৎপাদন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

দেশবন্ধু গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন নরসিংদী-২ আসনের সংসদ সদস্য কামরুল আশরাফ খান, সাবেক সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আশরাফ খান এবং সাবেক শিক্ষা সচিব এন আই খান।

শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু বলেছেন, দেশের অর্থনীতি আজ এগিয়ে যাচ্ছে। অর্থনীতিতে বিশ্বেও দৃষ্টি কেড়েছে বাংলাদেশ। গ্রামীণ অর্থনীতিতেও সুবাতাস বইছে। বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন ভাতার মাধ্যমে প্রতি ইউনিয়নে ১২শ’ মানুষ উপকৃত হচ্ছেন।

আমু বলেন, অনেকের টাকা থাকলেও শিল্প উদ্যোক্তা হতে চান না। এটা বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশের জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে না। মধ্যম আয়ের দেশে যেতে বিনিয়োগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেন তিনি। শিল্পমন্ত্রী বলেন, শিল্প উদ্যোগের মাধ্যমে কর্মসংস্থান হয়। বঙ্গবন্ধু এমন শিল্পভিত্তিক বাংলাদেশই গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে হত্যা করে তাঁর এ প্রচেষ্টাকে থামিয়ে দেওয়া হয়। ২১ বছর পর তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের কাজ করছেন তার কন্যা শেখ হাসিনা।

তিনি আরও বলেন, দেশে শিক্ষিতের হার ৪৭ থেকে ৭১ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলেই দেশে উন্নয়নের ধারা সৃষ্টি হয়। মানুষের অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তি না হলে বঙ্গবন্ধু ও শহীদদের আত্মা শান্তি পাবে না। উন্নয়ন ব্যহত করতে শেখ হাসিনাকে বারবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। এ ষড়যন্ত্র শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নয়, এ ষড়যন্ত্র জাতির বিরুদ্ধে। পাকিস্তানের সেই অপশাসকরা এখনও বাংলাদেশকে পিছিয়ে নেওয়ার ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে শিল্পমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের ঘটনাকে ক্যাপিটালাইজ (পুঁজি) করে দেশে কোনো রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের সুযোগ নেই। তিনি বলেন, মিয়ানমারে মানবতাকে ভুলণ্ঠিত করে একদিনের শিশুকেও হত্যা থেকে রেহায় দেয়া হচ্ছে না। আবাল, বৃদ্ধ, বণিতা নির্বিশেষে হত্যার শিকার হচ্ছে। যেভাবে নারীদের নির্যাতন করে হত্যা করা হচ্ছে তা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল।

মিয়ানমারের ঘটনার সঙ্গে দেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়কালের মিল রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে মনে পড়ে ১৯৭১ সালের কথা। সে সময় পাকহানাদার বাহিনী ও তাদের দোষর রাজাকার, আলবদররা যেভাবে নির্যাতন করেছিল, মা-বোনের সভ্রমহানীসহ ৩০ লাখ মানুষকে হত্যা করেছিল, গ্রাম-গঞ্জ পুড়িয়ে ছারখার করে দিয়েছিল। তেমনি অবস্থা এখন মিয়ানমারে সৃষ্টি হয়েছে। বিশ্বের কাছে আমাদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং তার সরকার সব রকম প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং ইতিমধ্যে কিছুটা সাড়া পাওয়া গেছে-বলেন আমির হোসেন আমু। তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশ আয়াতনে ছোট, জনসংখ্যা বেশি। এরপরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা নির্যাতিতদের আশ্রয় দিচ্ছি।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে আমু বলেন, আমরাও তো বলতে পারি আপনাদের নেত্রী লন্ডনে বসে দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র না করে তিনি যদি মিয়ানমানের কথা বলতেন তাহলে আপনারা যেটা বলছেন, আপনাদের মুখে সেটা শোভা পেতো। কিন্তু আমরা লক্ষ্য করছি আপনাদের নেত্রী লন্ডনে বসে এমন কোনো প্রচেষ্টা চালাননি, এমন কোনো বক্তব্য দেননি, যেটা মিয়ানমারের নির্যাতিত মানুষের পক্ষে যায়।

উদাহরণ হিসেবে একজন মায়ের প্রসব বেদনার কষ্টের কথা উল্লেখ করে দেশবন্ধু গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, ঠিক এই বেদনার মত আমরাও তিলে তিলে দেশবন্ধু গ্রুপ গড়ে তুলেছি। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখে চলেছি। তবে শিল্পায়নের জন্য বিদ্যুৎ ও গ্যাস সমস্যার কথা উল্লেখ করে দেশের উন্নয়নের স্বার্থে এসব সমস্যার স্থায়ী সমাধানের দাবি জানান তিনি।

দেশবন্ধু ফুড এন্ড বেভারেজের উৎপাদনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যহত থাকলে আগামীতে দেশের কোমল পানির চাহিদা পূরণে এই সেক্টরে শতাধিক শিল্পের প্রয়োজন হবে। দেশ যেভাবে উন্নতির দিকে যাচ্ছে-তাতে করে বাংলাদেশ জাপানের মত অর্থনীতির দেশে যেতে বেশি সময় লাগবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে নরসিংদী জেলা ও পলাশ উপজেলার উচ্চ পর্যায়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা, দেশবন্ধু গ্রুপের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, কোম্পানির নতুন উৎপাদিত কোমল পানীয়’র মধ্যে রয়েছে- এনার্জি ড্রিংক ‘গুরু’, দেশবন্ধু কোলা, দেশবন্ধু লেমন, দেশবন্ধু ক্লাউডি লেমন, দেশবন্ধু ড্রিংকিং ওয়াটার, দেশবন্ধু জিরা পানি, দেশবন্ধু ম্যাংগো ড্রিংক এবং দেশবন্ধু লিচি ড্রিংক।

এছাড়াও দেশবন্ধু ফুড এন্ড বেভারেজ চিপস, বিস্কুট, আটা, সুজি এবং ময়দা শিগগিরই উৎপাদনে যাবে বলে কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here