রাহেল আহমেদ শানু : আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। প্রার্থী চূড়ান্ত নিয়ে ইতোমধ্যে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজনৈতিক দলগুলো। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগসহ বিএনপি, জাতীয় পার্টি এমনকি ছোট ছোট দলগুলোও বসে নেই। এসব রাজনৈতিক দলের মনোনয়ন পেতে দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেছেন শতাধিক উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী।

সংসদ সদস্য হতে মনোনয়ন তালিকায় রয়েছেন তৈরি পোশাক শিল্পের মালিক, বিভিন্ন ব্যাংক, বিমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান এবং পরিচালক, ক্ষুদ্র, ই-কমার্স ও স্বর্ণ ব্যবসায়ী। ইতোমধ্যে তারা নিজ নির্বাচনী এলাকায় জনসংযোগ বাড়িয়েছেন। যোগাযোগ বাড়িয়েছেন প্রত্যাশিত দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে।

বর্তমান সংসদে ১৭৭ জন ব্যবসায়ী সংসদ সদস্যদের মধ্যে বিভিন্ন ব্যাংকের অর্ধশতাধিক চেয়ারম্যান ও পরিচালক আগামী সংসদ নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাশা করছেন। এফবিসিসিআই, বিজিএমইএ, বিকেএমইএ এবং বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, চেয়ারম্যানদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।

বিজিএমইএ ও বিকেএমই সংশ্লিষ্ট যারা : পোশাক শিল্পের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত সাবেক ও বর্তমান সংসদ সদস্য রয়েছেন মোট ৩৭ জন। এর মধ্যে দশম জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব করছেন ১২ জন।

তাদের মধ্যে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী রয়েছেন চারজন। তাদের একজন শাশা গার্মেন্টের একসময়ের চেয়ারম্যান, পানিসম্পদমন্ত্রী ও চট্টগ্রাম-৪ আসন থেকে জাতীয় পার্টির মনোনয়নে নির্বাচিত সাংসদ ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।

আরেকজন হচ্ছেন- সানোয়ারা গার্মেন্টের এমডি চট্টগ্রাম-৮ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত এমপি এবং প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি।

এ ছাড়া রয়েছেন হামিদ ফ্যাশনের এমডি ঢাকা-৩ থেকে নির্বাচিত এমপি, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু এবং ইন্টারস্টপ অ্যাপারেলসের এমডি রাজশাহী-৬ থেকে নির্বাচিত এমপি ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর বাইরেও বর্তমান সংসদে এমন অনেক আলোচিত-সমালোচিত যারা বিজিএমইএর সদস্য এবং একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে চলেছেন তার মধ্যে রয়েছেন রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল ওয়াদুদ দারা। তার প্রতিষ্ঠান টঙ্গীর এহসান ফ্যাশন লিমিটেড।

ঢাকা-১১ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতউল্লাহ। নারায়ণগঞ্জের এপেক্স স্পিনিং এন্ড নিটিং মিলস লিমিটেড তার প্রতিষ্ঠান। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী মো. নসরুল হামিদ বিপুর সংশ্লিষ্টতা রয়েছে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় হামিদ সোয়েটার লিমিটেডের সঙ্গে।

এফবিসিসিআই সংশ্লিষ্ট যারা : মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। তিনি দোহার-নবাবগঞ্জ নিয়ে গঠিত ঢাকা-১ আসনে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে চান।

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর আটজন পরিচালকও প্রথমবারের মতো এবার প্রার্থী হতে চলেছেন। এরা হচ্ছেন- সংগঠনের পরিচালনা পর্ষদের সহসভাপতি মুনতাকিম আশরাফ চাইছেন কুমিল্লার চান্দিনা থেকে প্রার্থী হতে। এ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য আলী আশরাফ।

এফবিসিসিআইর সাবেক সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন আগামী নির্বাচনে নরসিংদী-৪ আসনের মনোহরদী-বেলাব এলাকা থেকে প্রথমবারের মতো ভোটে দাঁড়াতে চাইছেন। এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি মাতলুব আহমাদের সহধর্মিণী এবং নিটল-নিলয় গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের ভাইস চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ উইমেন্স চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি সেলিমা আহমাদ।

তিনি কুমিল্লা-২ আসনে (হোমনা-তিতাস) আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন। ইসলাম নিয়ে কটূক্তি করায় মন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পাওয়া আবদুল লতিফ সিদ্দিকীও এই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী।

এফবিসিআইর পরিচালক বিশিষ্ট অভিনেত্রী শমী কায়সার প্রার্থী হতে চান নোয়াখালী-১ আসন থেকে।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের যারা আছেন : প্রায় অর্ধশত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা পরিচালক রয়েছেন এই কাতারে। ব্যাংকের পাশাপাশি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাবেক সভাপতি ও সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসানুল ইসলাম টিটু আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী। টাঙ্গাইল-৬ আসনে (নাগরপুর-দেলদুয়ার) নির্বাচন করতে চান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here