তালিকাচ্যুত কোম্পানির শেয়ার নিয়ে ‘ডিএসইর কোন করণীয় নেই’

0
2115

সিনিয়র রিপোর্টার : রহিমা ফুড এবং মডার্ন ডাইং অ্যান্ড স্ক্রিন প্রিন্টিংকে বিভিন্ন অভিযোগে ১৯ জুলাই থেকে তালিকাচ্যুত করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) কর্তৃপক্ষ। ‘উৎপাদন বন্ধ অন্য কোম্পানিগুলোর ক্ষেত্রেও একই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। প্রাথমিকভাবে এটি দৃষ্টান্ত হিসেবে পদক্ষেপ’ গ্রহণ করেছে ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

তিন বছরের অধিক সময় ধরে উৎপাদন বন্ধ এবং তালিকাচ্যুত হওয়া কোম্পানিগুলোর বিপুল পরিমাণ শেয়ার নিয়ে ‘ডিএসইর কোন করণীয় নেই। যা করার কোম্পানির কর্তৃপক্ষ করবে। কারণ, এসব কোম্পানি সম্পর্কে আগে থেকে সতর্ক করা হয়েছিল। তালিকা থেকে বাদ পড়ায় অনেক বিনিয়োগকারী ক্ষতিগ্রস্থ হলেও কোন করণীয় নেই’। নাম প্রকাশ না-করার শর্তে ডিএসইর ঊর্ধতন এক কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার এসব কথা বলেন।

তিন বছরের অধিক সময় ধরে উৎপাদন বন্ধ এবং অস্বাভাবিকভাবে শেয়ারপ্রতি দর বৃদ্ধি পাচ্ছে অন্তত ১৩ টি কোম্পানির। এসব কোম্পানি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, আপাতত দুটি কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ধারবাহিকভাবে অন্য কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিনিয়োগকারীর বিপুল পরিমাণ লোকসান বা টাকা ফেরত সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন, ‘এটা কোম্পানি এবং বিনিয়োগকারীর ব্যাপার। তবে এ বিষয়ে আপাতত ডিএসইর কোন করণীয় নেই’।

বিনিয়োগকারীদের অর্থ ফেরত সম্পর্কে চাইলে মডার্ণ ডাইং অ্যান্ড স্ত্রিন প্রিন্টিং লিমিডের কোম্পানি সেক্রেটারি কামাল হোসাইন বলেন, আমরা এখনো ডিএসই কোন চিঠি (বৃহস্পতিবার) পাইনি। আর নির্দেশনা না পাওয়ায় কোন মন্তব্য করতে পারছি না। চিঠি পাওয়ার পরে কোম্পানির চেয়ারম্যান বিষয়টি দেখবেন।

এদিকে, চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জে (সিএসই) বৃহস্পতিবার সকালে শেয়ার লেনদেন চললেও পরে তা সাসপেন্ড করা হয়েছে। একইসঙ্গে যেসব শেয়ার লেনদেন হয়েছে তা তাও বাতিল করা হয়েছে বলে সিএসই কর্তৃপক্ষ জানায়।

রহিমা ফুড : ১৯৯৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে ২০১৩ সালের ১৩ জুন থেকে কোম্পানিটির উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। ভবিষ্যতে উৎপাদন শুরু হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।

মডার্ণ ডাইং অ্যান্ড স্ত্রিন প্রিন্টিং : ২০১০ সালের ৩১ জানুয়ারি থেকে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। প্লান্ট, শ্রমিক ও গ্যাস সমস্যা এবং মেশিনের কার্যকারিতা অনেক কম হওয়ায় উৎপাদন বন্ধ। বিশেষ সাধারণ সভায় (ইজিএম) শেয়ারহোল্ডারদের সম্মতিতে কারখানার জায়গা দীর্ঘমেয়াদে গোডাউনের জন্য ভাড়া দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, অনেক বিনিয়োগকারী ধারণা করছেন কোম্পানি দুটির শেয়ার ওটিসিতে লেনদেন করা হবে। আসলে তা নয়, এখন থেকে কোম্পানির দুটির শেয়ার কোথাও লেনদেন হবেনা। শেয়ারধারীদের আগামীতে কোম্পানির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে সামগ্রীক ব্যবস্থা নিতে হবে।

পেছনের খবর : তালিকাচ্যুত হলো রহিমা ফুড ও মডার্ণ ডাইং

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here