তসরিফার প্রথম ঘোষণা, ইপিএস-ন্যাভ বৃদ্ধি

1
7394

শাহীনুর ইসলাম : ‘তথাকথিত’ বা বাজারে টিকে থাকার জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। সম্প্রতি আইপিও শেষে লটারী সম্পন্নকারী প্রতিষ্ঠানটি প্রথম ১২ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করে। এর মধ্যে ৫ শতাংশ নগদ এবং ৭ শতাংশ বোনাস শেয়ার ঘোষণা করা হয়। আইপিও পরবর্তী শেয়ারহোল্ডাররা এই লভ্যাংশ পাবেন।

তবে ‘তুলনামূলক অনেক কম’ এই ঘোষণা। কেননা বিনিয়োগকরীদের প্রত্যাশা ছিল আরো একটু বেশি। টেক্সটাইল খাতের নিম্নগতির বাজারে ১২শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণাকেও অনেকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন। একইসঙ্গে কোম্পানিটির ইপিএস ও লভ্যাংশ অনেকটা বেড়েছে।

অন্যদিকে, টেক্সটাইল খাতের এই ঘোষণা আগামীতে ধরে লাখতে পারবে কিনা, সে নিয়েও আশঙ্কার কথা রয়েছে।

দেশের উভয় পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির পর বার্ষিক সাধারণ (এজিএম) এবং রেকর্ড তারিখ ঘোষণা করা হবে। কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের সভায় বুধবার এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

আশঙ্কার কথা হলো- রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের লটারি ড্র ২৭ শে এপ্রিল, সোমবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোম্পানি আইপিও সম্পন্ন করার পর প্রথম লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর আগে কোম্পানি ২০০৯ সাল থেকে ২০১৩ সালের (৫বছর) মধ্যে ২০১১ সালে একবার ১:১. ১০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড দেয়। এরপরে কোম্পানি ২০১৪ সালের লভ্যাংশ প্রদান করে।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৬৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা সংগ্রহ করে।

আলোচিত বছরে কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৩ পয়সা। বছর শেষে শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩৭ টাকা ৪৪ পয়সা। তবে গত বছরের তুলনায় ইপিএস ও ন্যাভ অনেকটা বেড়েছে।
২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ হওয়া অর্থ বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২ টাকা ৪৯ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) ছিল ৩৪  টাকা ৪১ পয়সা ।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here