তরল গ্লুকোজ উৎপাদন করবে সালভো কেমিক্যাল

0
209

স্টাফ রিপোর্টার : সম্প্রসারিত জিংক সালফেট প্লান্ট স্থাপনের পরিকল্পনা থেকে সরে এসে এবার তরল গ্লুকোজ উৎপাদনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সালভো কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড। ব্যয়সাশ্রয়ী না হওয়ার পাশাপাশি পরীক্ষামূলক উৎপাদন ব্যর্থ হওয়ার কারণে জিংক সালফেট প্লান্ট স্থাপনের পরিকল্পনা থেকে সরে এসেছে কোম্পানিটি। প্রস্তাবিত গ্লুকোজ প্লান্টের উৎপাদন সক্ষমতা দৈনিক ২৮ টন। দুই-তিন মাসের মধ্যেই গ্লুকোজ প্লান্টের কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

রোববারের সভায় জিংক সালফেট প্লান্টের বদলে তরল গ্লুকোজ প্লান্ট স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয় সালভো কেমিক্যালের পর্ষদ। বিদ্যমান জিংক সালফেট প্লান্টের যন্ত্রপাতি গ্লুকোজ প্লান্টে স্থানান্তর করা হবে। তাছাড়া প্রয়োজনীয় নতুন যন্ত্রপাতিও সংযোজন করা হবে। দেশের খাদ্য ও ওষুধ শিল্পের কাঁচামাল হিসেবে তরল গ্লুকোজ ব্যবহার হয়।

এর আগে ২০১৬ সালের অক্টোবরে সালভো কেমিক্যাল জানিয়েছিল, সে বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে জিংক সালফেট প্লান্টের যন্ত্রপাতি স্থাপন ও চালুর পাশাপাশি পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করা সম্ভব হবে। আর ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে প্লান্টটি বাণিজ্যিক উৎপাদনে আসবে। কোম্পানির প্রক্ষেপণ ছিল, ইউনিটটির সক্ষমতা দৈনিক ২৫ টন আর উৎপাদন সক্ষমতা দৈনিক ১৫ টন।

তবে পরবর্তীতে নিধারিত সময়ের মধ্যে জিংক সালফেট প্লান্টটি চালু করতে পারেনি কোম্পানিটি। ৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৭ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনের তথ্যানুসারে, জিংক সালফেট প্লান্ট স্থাপনের জন্য কোম্পানিটি ২৬ কোটি টাকার বেশি বিনিয়োগ করে। তবে পরীক্ষামূলক উৎপাদন ব্যয়সাশ্রয়ী না হওয়ার কারণে সে সময় প্লান্টটি চালু করেনি কোম্পানিটি। জিংক সালফেট প্লান্ট চালু করতে গবেষণা ও উন্নয়ন কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন বলেও জানায় কোম্পানিটি। তবে শেষ পর্যন্ত জিংক সালফেট প্লান্ট স্থাপনের পরিকল্পনা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে কোম্পানিটিকে।

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৭ হিসাব বছরের জন্য ৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে সালভো কেমিক্যাল। কোম্পানিটির বার্ষিক শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ৭৯ পয়সায়, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ৭৩ পয়সা (বোনাস শেয়ার সমন্বয়ের পর)। ৩০ জুন কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ১১ টাকা ৯১ পয়সায়।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (জুলাই-ডিসেম্বর) ৩৩ পয়সা ইপিএস দেখিয়েছে কোম্পানিটি। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ৩৯ পয়সা।

ডিএসইতে সর্বশেষ ২৪ টাকা ৭০ পয়সায় সালভো কেমিক্যালের শেয়ার বেচাকেনা হয়। গত এক বছরে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারের দর ১৮ টাকা ৩০ পয়সা থেকে ২৭ টাকা ২০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে।

২০১১ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১৫০ কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ৬১ কোটি ৯২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। রিজার্ভে আছে ৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা। বর্তমানে কোম্পানির ২২ দশমিক ১৪ শতাংশ শেয়ার এর উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, প্রতিষ্ঠান ১২ দশমিক ১৬ ও বাকি ৬৫ দশমিক ৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

সর্বশেষ নিরীক্ষিত ইপিএস (বোনাস শেয়ার সমন্বয়ের পর) ও বাজারদরের ভিত্তিতে এ শেয়ারের মূল্য আয় (পিই) অনুপাত ৩২ দশমিক ২৪, হালনাগাদ প্রান্তিক মুনাফার ভিত্তিতে যা ৩৭ দশমিক ১২।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here