ডিএসইর কৌশলগত বিনিয়োগকারীর তালিকায় সেনজেন ও সাংহাই স্টক

4
460

স্টাফ রিপোর্টারঃ কৌশলগত বিনিয়োগকারী হিসেবে চীনের সেনজেন ও সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ যৌথভাবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসইর) এক-চতুর্থাংশের মালিকানা পেতে চায়। এ জন্য শেয়ারপ্রতি সর্বোচ্চ ২৫ টাকা হারে মোট এক হাজার ১২৭ কোটি টাকার দরপ্রস্তাব করেছে স্টক এক্সচেঞ্জ দুটি।

এ ছাড়া যৌথভাবে ডিএসইর অংশীদার হতে একই রকম আগ্রহ দেখিয়েছে নিউইয়র্কভিত্তিক বিশ্বের দ্বিতীয় প্রধান স্টক এক্সচেঞ্জ নাসডাক, ভারতের ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (বিশ্বের ১২তম) ও ফ্রন্টিয়ার বাংলাদেশ এলএলপি। এ তিন প্রতিষ্ঠান ডিএসইর প্রতিটি শেয়ারের দর দিতে চেয়েছে ১৫ টাকা। এ জোট এর আগে ১২ টাকা দরপ্রস্তাব করেছিল।

সংশ্নিষ্ট সূত্র আরও জানায়, একই সঙ্গে প্রযুক্তিগত উন্নয়নের স্বার্থে সেনজেন ও সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ ডিএসইকে আরও তিন কোটি ৭০ লাখ ডলার বা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩০৭ কোটি টাকা সহায়তা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। এর আগে এ দুই স্টক এক্সচেঞ্জ ডিএসইর প্রতিটি শেয়ার কিনতে প্রাথমিকভাবে ২২ টাকা দরপ্রস্তাব করেছিল। চূড়ান্ত দরপ্রস্তাবের সময় তিন টাকা বাড়িয়ে নতুন এ দরপ্রস্তাব করা হয়েছে। বাজার মূলধন বিবেচনায় সাংহাই বিশ্বের পঞ্চম ও এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম স্টক এক্সচেঞ্জ। এ ক্ষেত্রে সেনজেনের অবস্থান বিশ্বে অষ্টম ও এশিয়ায় চতুর্থ।

পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বাড়াতে ২০১৩ সালে স্টক এক্সচেঞ্জ আইন সংশোধন করে এর মালিকানা থেকে ব্যবস্থাপনা বিভাগ পৃথক (ডিমিউচুয়ালাইজড) করা হয়। শর্ত দেওয়া হয়, স্টক এক্সচেঞ্জের ২৫ শতাংশ শেয়ার কৌশলগত বিনিয়োগকারীদের কাছে বিক্রি করতে হবে। বর্তমানে ডিএসইর পরিশোধিত মূলধন এক হাজার ৮০৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের শেয়ার সংখ্যা ১৮০ কোটি ৩৭ লাখেরও কিছুটা বেশি। আইন অনুযায়ী, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ৪৫ কোটি নয় লাখ ৪৪ হাজার শেয়ার বিক্রি করতে হবে। বিশ্বের খ্যাতনামা কয়েকটি স্টক এক্সচেঞ্জ ১৫ থেকে ২৫ টাকা দরপ্রস্তাব করলেও দেশীয় বিনিয়োগকারীদের একটি জোট গত বছরের জুনে শেয়ারপ্রতি ৩৩ টাকা দর দিতে প্রস্তাব করেছিল। ওই জোটে ছিল ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান লংকাবাংলা ফাইন্যান্স ও বীমা খাতের অন্যতম প্রধান কোম্পানি ডেল্টা লাইফ।

এ ছাড়া ওয়ান ও সাউথইস্ট ব্যাংক যথাক্রমে ২৫ টাকা ২৫ পয়সা এবং ৩০ টাকা দরে ডিএসইর শেয়ার কিনতে দরপ্রস্তাব করেছিল। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিনিয়োগ সংস্থা আইসিবিও আগ্রহ দেখায়। তবে গত বছরের ৮ জুন পর্ষদ সভায় ডিএসইর পর্ষদ এসব দর কম হওয়ায় কোনোটিই গ্রহণ করেনি।

4 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here