“টার্গেট উচ্চভিলাষী না হলে তা অর্জনের আকাঙ্ক্ষা থাকে না।” – এনবিআর চেয়ারম্যান

0
103

স্টাফ রিপোর্টার: রাজস্ব সংগ্রহ ঠিক রেখে পর্যায়ক্রমে ভবিষ্যতে করপোরেট কর কমানোতে হাত দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

তিনি বলেছেন, “এবারের অর্থবছরে রাজস্ব কমে যাবার ভয়ে করপোরেট কর সব স্তরে কমানো হয়নি।”

বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর কাকরাইলের আইডিইবি ভবনে বাংলাদেশ ট্যাক্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (বিটিটিআই) আয়োজিত ২০১৮-২০১৯ অর্থবছর বাজেট পরবর্তী আলোচনা ও রাজস্ব আইন বিষয়ক দুদিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনীতে তিনি এসব কথা বলেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, “রাজস্ব সংগ্রহ ঠিক রেখে পষায়ক্রমে ভবিষ্যতে করপোরেট কর কমানোতে হাত দেবে। এ ক্ষেত্রে সামনে যে করপোরেট করে হাত দেওয়া হবে সেই স্ল্যাব ২৫ ও ৩৫ শতাংশ। এবারের অর্থবছরে করপোরেট কর কমিয়েছি। তবে সব স্তরে কমানো সম্ভব হয়নি। কারন যদি সব স্তরে কমানো হতো, তবে বড় ধরনের রাজস্ব সংগ্রহ থেকে বঞ্চিত হব। এবারের অর্থবছরে বেনিফিটটা দেশের আথিক প্রতিষ্ঠানগুলো পেয়েছে। তবে টেলিফোন ও সিগারেটে কর কমাতে চাইনি আমরা।”

ট্রেজারিতে যে টাকা জমা হয়েছে, তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বলা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, “ফলাফল যা হবে তাই বলা হবে। একটুও বাড়িয়ে বলা হবে না। রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হওয়া অর্থই প্রকৃত রাজস্ব। এখন পর্যন্ত আমরা যে তথ্য পেয়েছি, তাতে বিদায়ী অর্থবছরে রাজস্ব প্রবৃদ্ধি সাড়ে ১৯ শতাংশ।”

লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়া প্রসঙ্গে চেয়ারম্যান বলেন, “এবার টার্গেট খুব উচ্চভিলাষী ছিল। কারণ টার্গেট উচ্চভিলাষী না হলে তা অর্জনের আকাঙ্ক্ষা থাকে না। নির্বাচনের কারণে অর্থনীতিতে খুব বেশি প্রভাব পড়েনি। ভবিষ্যতেও পড়বে না।”

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, “প্রথম বছরে সব বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। সরকারের শেষ এবং নির্বাচনী বছর হওয়ায় এমন কিছু নিয়ে আসিনি যাতে সাধারণ মানুষ বিরক্ত হয়। ভবিষ্যতে আরও ভালো কিছু করবো। তবে প্রথম লক্ষ্য থাকবে যেকোনো নীতি যেন দীর্ঘ সময় চলে। কারণ ঘনোঘনো নীতি পরিবর্তন হলে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ হারায়।”

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব ও বিটিটিআই এর প্রধান উপদেষ্টা শ্যামল কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন- এনবিআর সদস্য (ভ্যাট) সুলতান মো. ইকবাল, সদস্য (কর) জিয়া উদ্দিন মাহমুদ, সদস্য (কাস্টমস নীতি) ফিরোজ শাহ আলম, কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার ইসমাইল হোসেন সিরাজী প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here