গোল্ডেন হারভেস্টের বিক্রয় প্রবৃদ্ধি

0
741

সিনিয়র রিপোর্টার : বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরুর দুই বছরের মধ্যে আইসক্রিমের বাজারে ব্যাপক সফলতা দেখিয়েছে খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের  তালিকাভুক্ত কোম্পানি গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। ব্লুপ ব্র্যান্ড নিয়ে দেশের আইসক্রিমের বাজারের বর্তমানে ৮ শতাংশ দখলে নিয়েছে কোম্পানিটি। সর্বশেষ হিসাব বছরে তাদের মোট বিক্রির ৫৬ শতাংশই ছিল আইসক্রিমে। বার্ষিক বিক্রয় প্রবৃদ্ধি ছিল ২১৪ শতাংশ।

২০১৫-১৬ হিসাব বছরে আইসক্রিম পণ্যে কোম্পানির বিক্রি ২৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা থেকে বেড়ে ৮০ কোটি ২১ লাখে উন্নীত হয়েছে। প্রবৃদ্ধির হার ২১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ।

কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, মূল প্রতিষ্ঠান গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ৯৯ শতাংশ মালিকানায় প্রতিষ্ঠার পর ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে গোল্ডেন হারভেস্ট আইসক্রিম লিমিটেড। এর পর মাত্র দুই বছরের মধ্যে সাবসিডিয়ারিটির বার্ষিক বিক্রি ৮০ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।

সর্বশেষ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, গেল হিসাব বছরে কোম্পানির মোট বিক্রির ৫৬ শতাংশই আইসক্রিম থেকে এসেছে। ফ্রোজেন ফুড ও ডেইরি পণ্যের তুলনায় বিক্রয় প্রবৃদ্ধি অনেক বেশি হওয়ায় ভবিষ্যতে আইসক্রিমে মনোযোগ বাড়ানোর ইঙ্গিত রয়েছে কোম্পানির বার্ষিক প্রতিবেদনে।

২০১৬ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাব বছরের প্রতিবেদনে কোম্পানি বলে, জীবনযাত্রার ধরনে পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে দেশের মানুষের খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আসছে। গতানুগতিক খাবারের বাইরে তাদের মধ্যে প্রক্রিয়াজাত খাবারের চাহিদা বাড়ছে।

চাহিদায় পরিবর্তনের কথা চিন্তা করেই আইসক্রিম শিল্পে নামে গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রো। ভৌগোলিক কারণে বাংলাদেশে আইসক্রিমের বাজার সম্ভাবনা বেশ ভালো। পণ্যের গুণগত মান, ভিন্নতা ও দক্ষ বিপণন ব্যবস্থার কারণে আইসক্রিমে এরই মধ্যে ভালো সফলতা দেখেছে কোম্পানি।

আইসক্রিমের মতো না হলেও ফ্রোজেন ফুড ও ডেইরি পণ্যেও কোম্পানিটিকে মোটামুটি সফল বলা যায়। সর্বশেষ বছরে আইসক্রিম পণ্যে উত্পাদন সক্ষমতার ৮৩ দশমিক ৪ শতাংশ ব্যবহার করেছে তারা। অন্যদিকে ফ্রোজেন স্ন্যাকসে সক্ষমতার ৪৭ দশমিক ৮ শতাংশ, ভেজিটেবলসে ৫২ দশমিক ৬ শতাংশ ও ডেইরি পণ্যে উৎপাদন সক্ষমতার মাত্র ১ শতাংশ ব্যবহার করেছে কোম্পানিটি।

কোম্পানির নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০১৫-১৬ হিসাব বছরে দুটি সাবসিডিয়ারিসহ মোট ১৪২ কোটি ৭৫ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করে গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ, যা আগের বছরের তুলনায় ৮৪ শতাংশ বেশি।

আগের বছরগুলোয় কোম্পানির সমন্বিত বিক্রিতে গড় প্রবৃদ্ধি ছিল ২৪ শতাংশ। মূলত আইসক্রিম সাবসিডিয়ারির সুবাদেই কোম্পানির সার্বিক বিক্রয় প্রবৃদ্ধি বেড়েছে।

২০১৫-১৬ হিসাব বছরে আইসক্রিম পণ্যে কোম্পানির বিক্রি ২৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা থেকে বেড়ে ৮০ কোটি ২১ লাখে উন্নীত হয়েছে। প্রবৃদ্ধির হার ২১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ। এ সময়ে আগের বছরের তুলনায় ৬ দশমিক ৯ শতাংশ বেড়ে ফ্রোজেন ফুডের বিক্রি দাঁড়িয়েছে ৪৩ কোটি ৭১ লাখ টাকা, যা আগের বছর ছিল ৪০ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। একই সময়ের ব্যবধানে কোম্পানিটির ডেইরি ফুডপণ্যের বিক্রি প্রায় ৮০ শতাংশ বেড়ে ১৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকায় উন্নীত হয়েছে, আগের বছর যা ছিল ১১ কোটি ১৬ লাখে।

বিক্রয় প্রবৃদ্ধির প্রতিফলন দেখা গেছে গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রোর মুনাফায়ও। সর্বশেষ হিসাব বছরে কোম্পানিটির নিট মুনাফা দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে। ২০১৫-১৬ হিসাব বছরে তাদের সমন্বিত কর-পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১৭ কোটি ৫৭ লাখ টাকা, আগের বছর যা ছিল ৮ কোটি ৫৮ লাখ টাকা।

এদিকে শেয়ারদরেও কোম্পানিটির ব্যবসায়িক সফলতার প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে। তিন মাসের ব্যবধানে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে গোল্ডেন হারভেস্ট এগ্রোর শেয়ারদর প্রায় দ্বিগুণে উন্নীত হয়েছে। ডিএসইতে গতকাল শেয়ারটির সমাপনী দর ছিল ৫০ টাকা ৪০ পয়সা, অক্টোবরের শেষ দিকে যা ছিল ২৫ টাকার ঘরে।

জানা গেছে, দেশে বর্তমানে আইসক্রিমের আনুষ্ঠানিক বাজার ১ হাজার কোটি টাকার বেশি। ৩৮ শতাংশ বাজার শেয়ার নিয়ে সবার উপরে ঈগলু, ২৮ শতাংশ বাজার শেয়ার নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে পোলার আইসক্রিম। এছাড়া জান জির দখলে রয়েছে ১৩ শতাংশ, কোয়ালিটির ১১ শতাংশ ও অন্যদের দখলে রয়েছে ২ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here