ক্রেডিট কার্ডের সুদহারে আসছে পরিবর্তন

0
993

স্টাফ রিপোর্টার : ব্যাংকগুলোর ক্রেডিট কার্ডে সুদহার নির্ধারণের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আরোপিত সর্বোচ্চ সীমায় পরিবর্তন চায় ব্যাংকগুলো। ক্রেডিট কার্ডের সুদহার নির্ধারণে অন্যান্য ভোক্তা ঋণের সঙ্গে তুলনা না করে অন্য যে কোনো ঋণের চেয়ে ৫ শতাংশ বেশি সুদ ধরে সীমা আরোপের প্রস্তাব দিয়েছে ব্যাংকগুলো। আর নীতিমালা বাস্তবায়ন আগামী বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত পিছিয়ে নেওয়ার দাবি এসেছে।

এসব দাবি নিয়ে ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন এবিবির একটি প্রতিনিধি দল সোমবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠক করে। ওই বৈঠক থেকে কোনো সিদ্ধান্ত না জানিয়ে বলা হয়েছে, এবিবির দাবি পর্যালোচনা করে পরে জানানো হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সভাকক্ষে গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান আনিস এ খানের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন ব্র্যাক ব্যাংকের এমডি সোহেল আরকে হোসাইন, ইস্টার্ন ব্যাংকের এমডি আলী রেজা ইফতেখার ও ঢাকা ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান।

মূলত ক্রেডিট কার্ডের ব্যবসায় এই ব্যাংকগুলো এগিয়ে রয়েছে। বেশিরভাগ ব্যাংক অন্য ঋণের তুলনায় ক্রেডিট কার্ডে দ্বিগুণ সুদ নেয়। যেমন, গত মে মাসে রাষ্ট্রীয় মালিকানার জনতা ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডে সুদহার নির্ধারিত ছিল ২৪ শতাংশ। অথচ অন্য ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১৩ শতাংশ সুদ ছিল। অধিকাংশ ব্যাংকের চিত্র এ রকম।

এমন পরিস্থিতিতে গত মে মাসে প্রথমবারের মতো ক্রেডিট কার্ডের একটি নীতিমালা করে দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। নীতিমালা অনুযায়ী, যে কোনো ব্যাংকে অন্যান্য ভোক্তা ঋণের সর্বোচ্চ যে সুদহার রয়েছে, তার চেয়ে ক্রেডিট কার্ডে ৫ শতাংশের বেশি নিতে পারবে না। অর্থাৎ গাড়ি, ফ্ল্যাট, টিভি-ফ্রিজ কেনা, বিয়ে বা যে কোনো ব্যক্তিগত ঋণে যদি কোনো ব্যাংকের সর্বোচ্চ ১৩ শতাংশ সুদ নির্ধারিত থাকে, ওই ব্যাংক ক্রেডিট কার্ডে সর্বোচ্চ ১৮ শতাংশ সুদ নিতে পারবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here