কেয়া কসমেটিকসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএসইসি

0
977

সিনিয়র রিপোর্টার : আইন অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অনিরীক্ষিত প্রান্তিক আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশে ব্যর্থ হয়েছে কেয়া কসমেটিকস লিমিটেড। এ কারণে কেয়া কসমেটিকসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইতোমধ্যে বিএসইসির এনফোর্সমেন্ট বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছে বিএসইসি।

এ বিষয়ে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান বলেন, কমিশনের নির্দেশনা লঙ্ঘন করে কেয়া কসমেটিকস দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন এখনো প্রকাশ করেনি। তাই কোম্পানিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এনফোর্সমেন্ট বিভাগকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিএসইসির নির্দেশনা ও স্টক এক্সচেঞ্জের লিস্টিং রেগুলেশন অনুসারে, জীবন বীমা কোম্পানি ছাড়া অন্য খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানির ক্ষেত্রে প্রথম প্রান্তিক শেষ হওয়ার ৪৫ দিনের মধ্যে আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করতে হবে। আর দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্রান্তিক শেষ হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের নিয়ম রয়েছে। এর ব্যত্যয় হলে নির্ধারিত সময়ের পর প্রতিদিনের জন্য ৫ হাজার টাকা জরিমানা আরোপের বিধান রয়েছে।

কেয়া কসমেটিকসের দ্বিতীয় প্রান্তিক (অক্টোবর-ডিসেম্বর) শেষ হয়েছে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর আর তৃতীয় প্রান্তিক (জানুয়ারি-মার্চ) শেষ হয়েছে চলতি বছরের ৩১ মার্চ। দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষ হওয়ার ছয় মাস এবং তৃতীয় প্রান্তিক শেষ হওয়ার তিন মাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেনি কোম্পানিটি।

জানতে চাইলে আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ না করার তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য কারণ জানাতে পারেননি কেয়া কসমেটিকসের কোম্পানি সচিব মো. নূর হোসেন। তাছাড়া বিএসইসির এনফোর্সমেন্ট অ্যাকশনের বিষয়েও তিনি অবগত নন বলে বণিক বার্তাকে জানিয়েছেন।

২০০১ সালে শেয়ারবাজারে আসা এ কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ১ হাজার ৫০০ কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ১ হাজার ২ কোটি ১১ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ২৮০ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ারের মধ্যে বর্তমানে উদ্যোক্তা-পরিচালক ৪৮ দশমিক ৬৮ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ৮ দশমিক ১৩ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে রয়েছে বাকি ৪৩ দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

ডিএসইতে কোম্পানিটির সর্বশেষ শেয়ারদর ছিল ৮ টাকা ৪০ পয়সা। গত এক বছরে কেয়া কসমেটিকস শেয়ারের সর্বোচ্চ দর ছিল ১৮ টাকা ৮০ পয়সা ও সর্বনিম্ন ৮ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here