ট্যানারির গ্যাস বিদ্যুৎ পানি সংযোগ বিচ্ছিন্ন ৬ এপ্রিল নয়

0
341
ফাইল ছবি-

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর হাজারীবাগে চালু থাকা ট্যানারি কারখানাগুলোর বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানি সংযোগ আগামীকাল বৃহস্পতিবার, ৬ এপ্রিল বিচ্ছিন্ন হচ্ছে না। তবে এরই মধ্যে কারখানাগুলোর টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

৬ এপ্রিলের মধ্যে হাজারীবাগের ট্যানারি কারখানাগুলো গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে কারখানাগুলো বন্ধ করতে গত ৩০ মার্চ পরিবেশ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

জানা যায়, রাজধানীতে ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ) সম্মেলন এবং ৬ এপ্রিল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ইসলামী ফাউন্ডেশনের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও আলেম-ওলামা মহাসম্মেলনে নিরাপত্তা প্রদানে প্রচুর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য প্রয়োজন হচ্ছে। এ অবস্থায় পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ না পাওয়ায় হাজারীবাগে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে অভিযান পরিচালনা সম্ভব হচ্ছে না। এমনটি জানিয়ে উচ্চ আদালতে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে প্রতিবেদন দেয়া হবে। গতকাল অধিদপ্তরে এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, হাজারীবাগের কারখানাগুলোর টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে বিটিআরসি। এছাড়া তিতাস গ্যাস, বিদ্যুত্ বিভাগ, ঢাকা ওয়াসার কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এসব সেবা সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। তবে ঢাকায় আইপিইউ সম্মেলন ও আলেম-ওলামা মহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার ফলে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে অভিযানের জন্য পুলিশ পাওয়া যাচ্ছে না। আর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ছাড়া এত বড় অভিযান সম্ভব নয়। এছাড়া অভিযান পরিচালনা না করতে উপর থেকে চাপ রয়েছে। তাই আপাতত টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার অগ্রগতি জানিয়েই আদালতে প্রতিবেদন দিচ্ছে পরিবেশ অধিদপ্তর।

জানতে চাইলে পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কাজী সারওয়ার ইমতিয়াজ হাশমী বলেন, টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। ঢাকায় দুটি বড় অনুষ্ঠান চলছে। এ অবস্থায় পুলিশ পাওয়া যায়নি। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ৬ এপ্রিলের মধ্যেই প্রতিবেদন দেয়া হবে। সেখানে বিস্তারিত উল্লেখ থাকবে। ৬ এপ্রিলের মধ্যে না হলেও দুটি অনুষ্ঠানের পর ৮-৯ এপ্রিলের দিকে পুলিশ পাওয়াসাপেক্ষে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

হাজারীবাগ থেকে সাভারের হারিণধরায় বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) নির্মিত চামড়া শিল্পনগরীতে ট্যানারি কারখানা স্থানান্তরের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এসেছে সর্বোচ্চ আদালত থেকে। আইনি সব ধাপ পেরিয়ে এখন এ আদেশ বাস্তবায়ন ছাড়া অন্য কোনো পথ নেই।

এদিকে সেবা সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে এলে স্বাগত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন ট্যানারি মালিকরা। গত রোববার রাজধানীর এক হোটেলে ট্যানারি মালিকদের ১৫টি সংগঠন কর্তৃক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেছেন, আমরা পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানকে স্বাগত জানাই। গ্যাস, বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে এলে আমরা পরিবেশ অধিদপ্তরকে স্বাগত জানাব। আদালত বলেছে কারখানা বন্ধ হলে ক্ষতিপূরণের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here