বিএসইসির নির্দেশনার অপেক্ষায়, আইপিও সাবসক্রিপশন জুনেই

0
1008

শাহীনুর ইসলাম : এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন (সাবসক্রিপশন ডেট) ১৩ এপ্রিল, সোমবার নির্ধারণ হলেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় তা হয়নি। এরপরে দ্বিতীয় দফায় আইপিও সাবসক্রিপশন ডেট নির্ধারণের আবেদন করেছে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, ১৪ থেকে ১৮ জুন এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের আইপিও সাবসক্রিপশনের সম্ভাব্য তারিখ হওয়ার আভাস মিলেছে।

নতুন নির্দেশনা পেতে ১ জুন, সোমবার পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছে আবেদন করা হয়েছে। কমিশন বিধি অনুসারে নতুন আইপিও সাবসক্রিপশন ডেট নির্ধারণ করলে বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ তা গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রকাশ করবে।

নতুন নির্দেশনা সম্পর্কে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের কোম্পানি সেক্রেটারি মি. লিয়াকত বলেন, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের কাছে সোমবার আবেদন করা হয়েছে। আশা করছি, কমিশন শিগগিরই সাবসক্রিপশন ডেট নির্ধারণ করবে।

এর আগে কোম্পানিটির আইপিও আবেদন ১৩ থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত হওয়ার কথা ছিল। করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত সরকার ৬৬দিন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় তা হয়নি।

বিএসইসিতে আবেদনের কথা জানিয়ে কোম্পানির ইস্যু ব্যবস্থাপক এএএ ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের শীর্ষ কর্মকর্তা মি. মামুন বলেন, বিধি অনুসারে আবেদন করা হয়েছে। আমরা ১৪ থেকে ১৮ জুন (রবি-বৃহস্পতিবার) সাবসক্রিপশন ডেট নির্ধারণের দাবি করেছি। কমিশন সম্মত হলে অবশ্যই তা অনুমোদন দেবেন। তবে আশা করছি, শিগগিরই হবে।

এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স শেয়ারবাজারে ২ কোটি ৬০ লাখ ৭৯ হাজার সাধারণ শেয়ার ছেড়ে ২৬ কোটি ৭ লাখ ৯০ হাজার টাকা উত্তোলন করবে। কোম্পানিটি ১০ টাকা ইস্যু মূল্যে শেয়ার ইস্যু করবে।

উত্তোলিত টাকায় ট্রেজারি বন্ড ও অন্যান্য ক্ষেত্রে বিনিয়োগ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করা হবে।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী কোম্পানিটির বিগত ৫ বছরে ভারিত গড় হারে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১.৪২ টাকা এবং পুনমূল্যায়নসহ শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৮.৭২ টাকায়। যা পুনমূল্যায়ন ছাড়া ১৬.৬৫ টাকা।

উল্লেখ্য, ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এএএ ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, আইআইডিএফসি ক্যাপিটাল এবং বিএলআই ক্যাপিটাল লিমিটেড।

পেছনের খবর-

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here