ওয়ার্ল্ড ব্যাংক ও আইএফসির সঙ্গে ডিএসইর বৈঠক

0
454

স্টাফ রিপোর্টার : বাজার উন্নয়নে বাংলাদেশসহ বিশ্বের আটটি উন্নয়নশীল দেশে দি ওয়ার্ল্ড ব্যাংক গ্রুপ এবং ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন যৌথভাবে একটি মিশন পরিচালনা করছে। এই মিশনের একটি অংশ হল জয়েন্ট ক্যাপিটাল মার্কেট ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম যা জুন ২০১৭ থেকে চালু হয়।

প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ওই মিশনের একটি প্রতিনিধিদল নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন সহ পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ধারাবহিক বৈঠকের অংশ হিসেবে সম্প্রতি পুঁজিবাজারের উন্নয়ন বিষয়ে ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে.এ.এম. মাজেদুর রহমানের নেতৃত্বে ডিএসইর ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেন।

সভায় বিশ্ব ব্যাংকের প্রতিনিধিরা ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বর্তমান কর্মকাণ্ড ও ভবিষ্যৎ চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে  জানার আগ্রহ প্রকাশ করেন। ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে.এ.এম মাজেদুর রহমান এক প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ডিএসই’র বাজার তথ্য, ডিএসইর সেবা, ডিমিউচুয়ালাইজেশনের পূর্ব  ও পরবর্তী  তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরেন। পরবর্তীতে কৌশলগত বিনিয়োগকারী বিষয়ে অগ্রগতি, সিসিপি গঠন ও এর ভবিষ্যৎ, নতুন প্রোডাক্ট ইটিএফ ডেরিভেটিবস ও ডেট মার্কেট চালু, ডিএসই আধুনিকায়ন ও স্টাফ প্রশিক্ষণ নিয়ে আলোচনা হয়।

বিশ্বব্যাংক মিশনের এ প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হল – ইকুইটি ও ডেটভিত্তিক সম্পদের মাধ্যমে সরকারি ও বেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহায়তা প্রদান, পুঁজিবাজার উন্নয়নে প্রকল্প পরিকল্পনা প্রণয়নে সহায়তা প্রদান, দীর্ঘ মেয়াদী ডেট ইন্সট্রুমেন্ট, স্পেশাল পারপাস বন্ড, নন-সভেরিন বন্ড, বিভিন্ন সিকিউরিটাইজেশনসহ পুঁজিবাজারের অবকাঠামোগত প্রকল্পে বিশ্বব্যাংক বা আইএফসির বিনিয়োগে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম ও সক্ষমতা বৃদ্ধি।

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে কোথায় ঘাটতি রয়েছে এবং কোন খাতে তাদের ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে, সে বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা নিতে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করছে। মিশন প্রতিনিধি ডেরিভেটিভস, বন্ড ও সেন্ট্রাল কাউন্টার পার্টি (সিসিপি) নিয়ে কাজ করার পাশাপাশি করপোরেট গভর্ন্যান্স গাইডলাইন নিয়েও কাজ করবে। এছাড়া এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সঙ্গেও যৌথভাবে কাজ করতে চায় আইএফসি-বিশ্বব্যাংক।

প্রতিনিধি দলে ছিলেন মিশনের সিনিয়র ফাইন্যান্সিয়াল সেক্টর স্পেশালিস্ট মি. এ.কে.এম. আবদুল্লাহ, সিনিয়র ইনভেস্টমেন্ট অফিসার মিস মিরা নারায়ানাস্বামী, প্রিন্সিপাল ইনভেস্টমেন্ট অফিসার মিস কান্নাগি রাগুনাথান, সিনিয়র ফিন্যান্সিয়াল সেক্টর স্পেশালিষ্ট মিস সুই ই আং, প্রিন্সিপাল ইন্ডাস্ট্রি স্পেশালিস্ট মি. ফারুক সাঈদ জাফরি। ডিএসই’র পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ডিএসইর প্রধান রেগুলেটরি কর্মকর্তা এ.কে.এম জিয়াউল হাসান খান,  প্রধান অর্থ কর্মকর্তা আব্দুল মতিন পাটওয়ারী,এফসিএমএ, প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা জিয়াউল করিম, মহাব্যবস্থাপক ও কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ আসাদুর রহমান, এফসিএস এবং মার্কেট ডেভেলপমেন্ট বিভাগে প্রধান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

একই দিনে সকালে এডিবির প্রতিনিধি ফাইন্যান্সিয়াল সেক্টর স্পেশালিস্ট/মিশন লিডার, পাবলিক সেক্টর, ফাইন্যান্স অ্যান্ড ট্রেড ডিভিশন ( এমএপিএফ ) মি. তাকুইয়া হোসিনু  ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠক করেন।

এ সময় ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে.এ.এম. মাজেদুর রহমান এডিবি’র প্রতিনিধিদের স্বাগত জানিয়ে ডিমিউচুয়ালাইজেশন পরবর্তী ডিএসই’র অগ্রগতি, সেন্ট্রাল কাউন্টার পার্টি গঠনের কারণও অগ্রগতি, কৌশলগত বিনিয়োগকারী, আইপিও অনুমোদন প্রক্রিয়া, ইটিএফ চালু ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা হয়। তার আগে এডিবি প্রতিনিধিকে ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন পূর্ববতী ও পরবর্তী অবস্থার এক তুলনামূলক চিত্র প্রজেন্টেশনের মাধ্যমে অবহিত করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here