বিশেষ প্রতিনিধি : সারাদেশে এস আলম গ্রুপের কোথায় কোন সম্পদ আছে এবং তাদের অর্থের উৎস কী, সে বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। এ গ্রুপের কোথায় কোন সম্পদ রয়েছে, তার খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। অনেক অভিযোগের কারণে শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়া হবে দেশের বৃহৎ একটি গ্রুপ অব কোম্পানির বিরুদ্ধে।

রোববার সচিবালয়ে জাতীয় কো-অর্ডিনেশন কাউন্সিলের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ কথা বলেন। অর্থমন্ত্রী জানান, তার ধারণা ঋণের টাকায় একের পর এক ব্যাংকের শেয়ার কিনছে এস আলম গ্রুপ।

এছাড়া বেসরকারি খাতের আরও কয়েকটি ব্যাংকের মালিকানা কিনে নেওয়ার খবরও গণমাধ্যমে এসেছে।

এস আলম  গ্রুপ কি ব্যাংকগুলো দখল করে নিচ্ছে- এক সাংবাদিকের এই প্রশ্নের উত্তরে মুহিত বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। তারা কী করছে, না করছে, তা দেখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে বলেছি।

কিছুদিন আগে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের মালিকানাও কিনে নিয়েছে এস আলম গ্রুপ। এই গ্রুপের নামে আরও টিভি চ্যানেলের লাইসেন্সও রয়েছে।

এক সাংবাদিক অর্থমন্ত্রীর কাছে জানতে চান, এস আলম গ্রুপের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তারা অনেক ব্যাংক দখল করে নিচ্ছে। এরপর আরেক সাংবাদিক জানতে চান, অর্থমন্ত্রী আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিবকে এ বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দিয়েছেন কি-না। এর জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমরা খবর-টবর নিচ্ছি, এরপর দেখা যাক কী করা যায়।

জানুয়ারিতে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের পর সম্প্রতি এসআইবিএলের পর্ষদে নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে এস আলম গ্রুপ। সব মিলিয়ে সাতটি ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানে এ গ্রুপের কর্তৃত্ব রয়েছে এই গ্রুপের। যে কারণে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে যাচ্ছে সরকার।

সংশ্নিষ্টরা জানান, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সংশ্নিষ্ট ব্যাংক বা অন্য ব্যাংক থেকে এস আলম গ্রুপের কর্ণধার সাইফুল আলম মাসুদ বা তার স্বার্থসংশ্নিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নেওয়া ঋণের টাকায় বিভিন্ন ব্যাংকের শেয়ার কেনা হয়েছে। যেমন ইসলামী ব্যাংকে গ্রুপটির নামে তিন হাজার কোটি টাকার বেশি ঋণ রয়েছে। এই ব্যাংকে তার শেয়ার রয়েছে ২০ শতাংশের মতো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here