এডিএন টেলিকমের ‘বিডিং নভেম্বরে’

0
656
রোড শো অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যান আসিফ মাহমুদ

সিনিয়র রিপোর্টার : বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ৫৭ কোটি টাকা তোলার ১৪ আগস্ট অনুমতি পেয়েছে তথ্য প্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ খাতের কোম্পানি এডিএন টেলিকম। কোম্পানিটির শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে বিক্রি করতে বিডিং (নিলাম) আগামী নভেম্বর মাসে শুরু হওয়ার আভাস মিলেছে।

ইতোমধ্যে স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষের কাছে বিডিং কার্যক্রম শুরু করতে আবেদন জমা দেয়া হয়েছে। আগামী অক্টোবর মাসের শেষে বিডিং শুরুর কিঞ্চিৎ সম্ভাবনা রয়েছে, তবে অক্টোবরে শেষের দিকে বিড়িং না হলে নভেম্বর মাসে হবে, নিশ্চিত -এডিএন টেলিকমের ইস্যু ব্যবস্থাপনা কোম্পানি আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের শীর্ষ এক কর্মকর্তা এসব কথা বলেন।

তিনি বৃহস্পতিবার সকালে আরো বলেন, তার আগে কোম্পানির কর্তৃপক্ষকে প্রাথমিকভাবে সম্ভাব্য দিন জানাতে হবে। এরপরে কমিশন বা এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ কোম্পানির সম্ভাব্য তারিখ পুণ:র্বিবেচনা করে চূড়ান্তভাবে নির্ধারণ ও ঘোষণা করেন। তবে তা আগামী নভেম্বর মাসে হচ্ছে, নিশ্চিত।

জানতে চাইলে তথ্য প্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ খাতের কোম্পানি এডিএন টেলিকমের কোম্পানি সেক্রেটারি মনির হোসাইন বলেন, আমরাও আশা করছি- নভেম্বরে বিডিং শুরু হবে। ইতোমধ্যে বিডিংয়ের জন্য আনুষঙ্গিক কাজ শুরু করতে আমরা ডিএসইতে আবদেনপত্র জমা দিয়েছি।

তিনি বলেন, অন্যদিকে ভাবনার বিষয় হচ্ছে- সামনে জাতীয় নির্বাচন। দেশের আগামী নির্ধারণ নিয়ে সবার ব্যস্থতা কম-বেশি বাড়বে। দেশের পরিস্থিতি কেমন হবে- সেও ভাবতে হবে।

তারপরেও আমরা আশাবাদী, আগামী নভেম্বর মাসে বিডিং হচ্ছে। আশা করছি, আমাদের কোম্পানি প্রসপেক্টাস দেখে সবাই বিডিংয়ে ভালোভাবে মূল্যায়ন করবেন।

এডিএন টেলিকমের আইপিও প্রসপেক্টাস থেকে জানা যায়, আইপিওর মাধ্যমে অর্থ তুলে তা কোম্পানির সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়ন (বিএমআরই), নতুন ডেটা সেন্টার তৈরি এবং ঋণ পরিশোধে ব্যয় হবে। এর মধ্যে বিএমআরইতে ব্যয় করা হবে ৩২ কোটি ৬৭ লাখ, ডাটা সেন্টারে পাঁচ কোটি ৪৯ লাখ, ঋণ পরিশোধে ১৫ কোটি ৯০ লাখ এবং বাকি অর্থ আইপিও খরচ হিসেবে যাবে।

এডিএন টেলিকমের আইপিও ব্যবস্থাপনায় রয়েছে ইস্যু ব্যবস্থাপনা কোম্পানি আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট। ঋণ পরিশোধ ও আইপিওর খরচ ছাড়া আইপিওর মাধ্যমে উত্তোলন করা বাকি অর্থ প্রায় তিন বছরে উঠে আসবে বলে সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

৪৪ কোটি ৮৬ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটির প্রতি বছরই মুনাফা বাড়ছে। ২০১৬ সালের জুনে সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি ১০ টাকার প্রতিটি শেয়ারে আয় করেছিল ২ টাকা ১০ পয়সা। ২০১৭ সালের জুনে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় দাঁড়িয়েছে ২ টাকা ৫২ পয়সা। শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য ১৬ টাকা ১৩ পয়সা।

এডিএনের ঋণমাণ দীর্ঘ মেয়াদে এ প্লাস এবং স্বল্প মেয়াদে এসটি টু। ২০১৭ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত বছরে কোম্পানিতে মোট সম্পদের পরিমাণ ১২৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা। মোট চার কোটি ৪৮ লাখ ৬০ হাজার শেয়ারের মধ্যে কোম্পানিটির উদ্যোক্তা/পরিচালকদের কাছে রয়েছে ৭৩ দশমিক ২৯ শতাংশ শেয়ার। বাকি শেয়ার রয়েছে অন্যান্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে।

এডিএন টেলিকম লিমিটেডের ছয় সদস্যের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান হিসেবে আছেন আসিফ মাহমুদ। ব্যবস্থাপনা পরিচালক হেনরি হিলটন পদাধিকার বলে পর্ষদের সদস্য। বাকিরা সবাই উদ্যোক্তা পরিচালক।

উল্লেখ্য, এডিএন টেলিকমের ইস্যু ব্যবস্থাপনা কোম্পানি হিসেবে কাজ করছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড। রেজিস্টার টু ইস্যু হিসেবে রুডস ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং কোম্পানিটির নিরীক্ষক হিসেবে রয়েছে সাইফুল সামসুল আলম অ্যান্ড কোম্পানি।

পেছনের খবর : ‘জুলাইয়ের শেষে’ আসছে এডিএন টেলিকমের আইপিও

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here