উৎপাদন বাড়াবে স্কয়ার প্রুপ

0
1078

স্টাফ রিপোর্টার : সুতা উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে নতুন সম্প্রসারণ প্রকল্প হাতে নিয়েছে বস্ত্র খাতের কোম্পানি স্কয়ার টেক্সটাইলস লিমিটেড। এজন্য গাজীপুরের কারখানায় ১১৯ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয়ে সম্প্রসারণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে কোম্পানিটি।

প্রকল্পের কাজ শেষ হলে কোম্পানির বিদ্যমান উৎপাদন সক্ষমতা আরো ৪ হাজার ৫১০ টন বেড়ে ৩৯ হাজার ৪৪৪ টনে দাঁড়াবে। ২০১৮ সালের মে মাসে প্রকল্পের কাজ শেষ করার সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে।

পর্ষদ সভায় ৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুমোদন ও বিনিয়োগকারীদের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণার পাশপাশি নতুন এ সম্প্রসারণ প্রকল্পের ঘোষণা দেয় স্কয়ার টেক্সটাইলস। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে কোম্পানির বার্ষিক বিক্রি ৯৮ কোটি ৩৩ লাখ টাকা বাড়বে। সেই সঙ্গে মুনাফা হবে টার্নওভারের ৮ দশমিক ১১ শতাংশ।

এদিকে নতুন সম্প্রসারণ প্রকল্পের পাশাপাশি কারখানার নিয়মিত সংস্কার ও আধুনিকায়নে বিএমআরই ও জমি কেনায় আরো ৩০ কোটি টাকা ব্যয় করবে কোম্পানিটি।

স্কয়ার টেক্সটাইলের কোম্পানি সচিব খন্দকার হাবিবুজ্জামান এ বিষয়ে বলেন, উৎপাদনক্ষমতা বাড়ানোর জন্য নতুন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে ভূমি উন্নয়নের কাজ শেষ হয়েছে। নতুন প্রকল্পটি ছাড়াও চলতি বছর বিএমআরএই ও জমি ক্রয়ে আরো ৩০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। অবশ্য প্রতি বছরই কারখানার সংস্কার ও আধুনিকায়নে অর্থ ব্যয় করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সর্বশেষ সমাপ্ত ২০১৬-১৭ হিসাব বছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য ২০ শতাংশ নগদ ও ৫ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে স্কয়ার টেক্সটাইলসের পর্ষদ। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৩০ পয়সা, যা আগে ছিল ৪ টাকা ১৪ পয়সা। এক বছরের ব্যবধানে ইপিএস কমেছে ৪৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ।

৩০ জুন ২০১৭ সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪১ টাকা ৫ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ ও অন্যান্য এজেন্ডা অনুমোদনের জন্য আগামী ৪ ডিসেম্বর বেলা ১১টায় ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী সেন্টারে বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) আয়োজন করা হয়েছে। রেকর্ড ডেট ৮ নভেম্বর।

বিএমআরই, মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানি ও জমি কিনতে ২০২ কোটি টাকা ব্যয় করবে স্কয়ার ফার্মা: ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের পর্ষদ ২০১৬-১৭ হিসাব বছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য ৩৫ শতাংশ নগদ ও সাড়ে ৭ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

পাশাপাশি চলতি বছর কারখানার সংস্কার ও আধুনিকায়নে (বিএমআরই), বিদেশ থেকে মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানি এবং জমি কিনতে ২০২ কোটি টাকা ব্যয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটি। গতকাল অনুষ্ঠিত পর্ষদ সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

গেল বছরে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ১৫ টাকা ৫১ পয়সা, যা আগের বছরে ছিল ১৩ টাকা ৪১ পয়সা। এক বছরের ব্যবধানে ইপিএস বেড়েছে ১৫ দশমিক ৬৬ শতাংশ। ৩০ জুন কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ৭১ টাকা ৪৭ পয়সা। আগামী ৪ ডিসেম্বর সকাল ১০টায় ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী সেন্টারে এজিএম আয়োজন করা হয়েছে। রেকর্ড ডেট ৮ নভেম্বর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here