পাইপলাইনে ১১টি কোম্পানির আইপিও

0
5342

শাহীনুর ইসলাম : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজারে আসার চেষ্টা করছে ১১টি কোম্পানি। কোম্পানিগুলোর আবেদন ইতোমধ্যে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) জমা রয়েছে। পাইপলাইনে থাকা কোম্পানির আইপিও অনুমোদন ও আবেদন নিয়ে এসব তথ্য সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এর মধ্যে বুক রোডশো সম্পন্ন করে বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুজিঁবাজারে তালিকাভুক্ত হতে যাচ্ছে- বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড, এসটিএস হোল্ডিংস লিমিটেড (অ্যাপোলো হাসপাতাল), আমরা নেটওয়ার্কস এবং ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট লিমিটেড।

আগামী ২৪ জুলাই, আইপিওতে আসতে রাজধানীতে রোডশো সম্পন্ন করবে আমান কটন।

পাইপলাইনে আরো রয়েছে- প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেড, ইফকো গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল লিমিটেড, হ্যামপ্যাল রি ম্যানুফেকচারিং বাংলাদেশ লিমিটেড, মারহাবা স্পিনিং মিলস, ভিএফএস থ্রেড ডায়িং লিমিটেড এবং শেফার্ড টেক্সটাইলস মিলস লিমিটেড। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) একটি সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এসটিএস হোল্ডিংস লিমিটেড বা অ্যাপোলো হাসপাতাল, আমরা নেটওয়ার্কস এবং ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, বসুন্ধরা পেপার মিলস ইতোমধ্যে রোডশো সম্পন্ন করে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে আবেদন করেছে। এরপরে দেশের দুটি স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ কোম্পানি সম্পর্কে ‘যাচাইপত্র’ উপস্থাপন করলে নিয়ন্ত্রক সংস্থা তা অনুমোদন দেয়

আইপিওতে পাইপলাইনে থাকা এসটিএস হোল্ডিংস লিমিটেড বা অ্যাপোলো হাসপাতাল কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড। ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা মার্চেন্ট ব্যাংকটির সিইও মাহবুব এইচ মজুমদার স্টক বাংলাদেশকে বলেন, আমরা সব কাজ শেষ করে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে জমা দিয়েছি। এথন অনুমোদনের অপেক্ষায়।

তিনি বলেন, নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে আমরা আবেদন করেছি। ডিএসই এবং সিএসই তাদের এসটিএস নিয়ে প্রতিবেদন জমা দিলে বিএসইসি বিষয়টি দেখবে। অ্যাপোলা হাসপাতাল অনেক ভালো কোম্পানি, এক্ষেত্রে আমার আশা করছি নিয়ন্ত্রক সংস্থা দ্রুত আইপিও অনুমোদন দেবে।

বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পর্যটন খাতের প্রতিষ্ঠান ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট লিমিটেড ৬০ কোটি এবং আইটি খাতের আমরা নেটওয়ার্কস লিমিটেড ৫৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করবে। দুটি কোম্পানির ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

আইপিও আবেদন এবং অনুমোদন নিয়ে কথা হলে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের সিইও কায়েস বলেন, ঢাকা রিজেন্সি হোটেলের কোয়ারি রিপোর্ট এসইসি জমা দিয়েছে। ডিএসই থেকেও দ্বিতীয় রিপোর্টে প্রায়মারি কিছু তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে। দ্রুত এটা আমরা জানাব।

বৃহস্পতিবার দুপুরে স্টক বাংলাদেশকে তিনি আরো বলেন, সব কিছু ঠিকভাবে এগুলে আগামী অগাস্ট বা সেপ্টেম্বর মাসে আমরা আইপিও অনুমোদন পেতে পারি।

পুঁজিবাজার থেকে প্যাসিফিক ডেনিমস্ লিমিটেড ৭৫ কোটি টাকা, ইফকো গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইল লিমিটেড ২০ কোটি টাকা, হ্যামপ্যাল রিম্যানুফেক্সারিং বাংলাদেশ লিমিটেড ২০ কোটি টাকা, মারহাবা স্পিনিং ৫০ কোটি টাকা, ভিএফএস থ্রেড ডায়িং লিমিটেড ২২ কোটি টাকা এবং শেফার্ড টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড তুলতে চায় ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়।

আইপিওর মাধ্যমে বসুন্ধরা পেপার মিলস ২০০ কোটি টাকা উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here