ঈদের আগে ইতিবাচক ধারায় লেনদেন

0
380

স্টাফ রিপোর্টার : ঈদুল আজহা উপলক্ষে পাঁচদিন লেনদেন বন্ধ থাকছে দেশের শেয়ারবাজারে। তবে বন্ধের আগে সোমবারসহ টানা চার কার্যদিবস ইতিবাচক ধারায় লেনদেন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স প্রায় ৩৩ পয়েন্ট ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএসসিএক্স ৬৪ পয়েন্ট সোমবার বেড়েছে। তবে শেষ কার্যদিবসে লেনদেন কিছুটা কমেছে উভয় বাজারে।

বাজারসংশ্লিষ্টরা বলছেন, টাকা উত্তোলনের সুযোগ না থাকায় স্বাভাবিকভাবেই বন্ধের আগে ব্যক্তি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার বিক্রির প্রবণতা কম থাকে। অন্যদিকে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ার লোভনীয় অবস্থানে থাকায় সেখানে বিনিয়োগে আগ্রহী হয়ে উঠছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, চলতি মাসের শুরু থেকেই কিছুটা ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে শেয়ারবাজার। ১ আগস্ট ঢাকার বাজারের প্রধান সূচক ৫ হাজার ৩০২ পয়েন্টে লেনদেন শুরু হয়ে কয়েক দিন ধরে টানা বাড়ে। তবে পরের সপ্তাহ আবার নিম্নমুখী ধারায় লেনদেন হলেও গেল সপ্তাহে আবার ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরে আসে।

সর্বশেষ ১৩ আগস্ট ডিএসইএক্স ৫ হাজার ৩৩৭ পয়েন্টে লেনদেন হলেও গতকাল তা ৫ হাজার ৫৫৭ পয়েন্টে উন্নীত হয়েছে। সোমবার ৩২ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট বেড়ে সূচকটি অবস্থান করছে ৫ হাজার ৫৭১ দশমিক ২০ পয়েন্টে।

ব্রড ইনডেক্সের পাশাপাশি সোমবার ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৫৭ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ ব্লু চিপ সূচক ৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৯৪৮ পয়েন্টে। আগের চার কার্যদিবসেও টানা ঊর্ধ্বমুখী ছিল সূচকগুলো।

এদিকে সোমবার ডিএসইতে লেনদেন কিছুটা কমলেও দর বেড়েছে অধিকাংশ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের। ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৪৪৫ কোটি ৩২ লাখ ২ হাজার ৫১২ টাকা। লেনদেন হওয়া ৩৩৫টি কোম্পানি, মিউচুয়াল ফান্ড ও করপোরেট বন্ডের মধ্যে সপ্তাহ শেষে দর বেড়েছে ১৯৮টির, কমেছে ৯৭টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৪০টি সিকিউরিটিজের বাজারদর।

এর আগের কার্যদিবসে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ৫৬০ কোটি ৫৭ লাখ ৫ হাজার টাকা। সে হিসেবে সোমবার ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ১১৫ কোটি ২৫ লাখ ২ হাজার টাকা।

ডিএসইতে লেনদেনের ভিত্তিতে প্রধান ১০টি কোম্পানি হলো— লংকাবাংলা ফিন্যান্স, বিবিএস কেবলস, সিটি ব্যাংক, ন্যাশনাল হাউজিং, ঢাকা ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, ইউনাইটেড পাওয়ার, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ ও সায়হাম টেক্স লিমিটেড।

ডিএএসইতে দর বৃদ্ধির শীর্ষে থাকা প্রধান ১০টি কোম্পানি হলো— মাইডাস ফিন্যান্স, শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, সায়হাম টেক্স, সিম টেক্স, ন্যাশনাল হাউজিং, পেনিনসুলা চিটাগাং, আইটি কনসালট্যান্টস, ফার্স্ট প্রাইম ফিন্যান্স মিউচুয়াল ফান্ড, বার্জার পেইন্ট ও প্যাসেফিক ডেনিমস লিমিটেড।

অন্যদিকে দর কমার শীর্ষে  থাকা কোম্পানিগুলো হলো— আজিজ পাইপস, মুন্নু সিরামিকস, জুট স্পিনার্স, স্টাইল ক্র্যাফট, প্রাইম ফিন্যান্স, প্রগ্রেসিভ লাইফ, মেঘনা লাইফ, জিল বাংলা সুগার মিলস, পিপলস ইন্স্যুরেন্স ও স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।

এদিকে দিন শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক সিএসইএক্স ৮১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১০ হাজার ৩৭৯ পয়েন্টে। সিএএসই-৩০ সূচক প্রায় ৮০ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৪ হাজার ৮৮২ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৩৫টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৫৩টির, কমেছে ৬৪টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির।

আর দিন শেষে লেনদেন হয়েছে ২৮ কোটি ৪৫ লাখ ১৭ হাজার টাকা। সিএসইতে দরবৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে যথাক্রমে কেঅ্যান্ডকিউ, মাইডাস ফিন্যাস, সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, সায়হাম টেক্স ও শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here