‘আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি’ অনুমোদন

0
686

সিনিয়র রিপোর্টার : ‘আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি’ নামে আরও একটি জীবন বীমা কোম্পানির অনুমোদন দিচ্ছে সরকার। আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সশস্ত্র বাহিনী ও অন্যান্য আধা-সামরিক বাহিনীর আহত ও নিহত সদস্যদের এবং তাদের পরিবারের কল্যাণ, পুনর্বাসন ও উন্নয়নের লক্ষ্যে আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে ‘আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স’ নামের জীবন বীমা কোম্পানির জন্য আবেদন করা হয়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে আইডিআরএ’র সদস্য ড. এম মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড’ অনুমোদনের বিষয়ে এখন আইনগত কোনো বাধা নেই। এখন পর্যন্ত সকল আইনিপ্রক্রিয়া সঠিক আছে। এখন আইনিপ্রক্রিয়া মেনে আবেদন করলে আমরা অনুমোদন দিয়ে দেব।

তিনি আরও বলেন, আমরা চাই ওরা (সেনাবাহিনীর আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স) আসুক। সত্যিকার অর্থে, সেনাবাহিনী খুবই সুশৃঙ্খল। বীমা খাতে কিছুটা যে অনৈতিক প্র্যাকটিস আছে, ওরা আসলে তা করবে না।

আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. গোলাম বলেন, জীবন বীমা কোম্পানিগুলো যে সেবা দিচ্ছে আমরা তার পাশাপাশি আরও একটু বাড়তি সেবা দেব। যেমন- যুদ্ধক্ষেত্রে আমরা বীমার সুবিধা দেব।

সশস্ত্র বাহিনীর পাশাপাশি বিজিবি, কোস্টগার্ড, পুলিশ, আনসার ও র‌্যাব সদস্যরা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বীমা কোম্পানিটি থেকে বীমা সহায়তা পাবেন। চলতি বছরের ৭ জুলাই প্রধানমন্ত্রী এ বীমা কোম্পানি গঠনের জন্য নীতিগত অনুমোদন দেন।

নীতিগত অনুমোদনের সারসংক্ষেপে বলা হয়েছে, দায়িত্ব পালনকালে বিভিন্ন সময়ে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সামরিক সদস্য নানা ধরনের অভিযানিক-অনাভিযানিক কার্যক্রমে অংশ নিতে যেয়ে গুরুতর আহত, এমনকি মৃত্যবরণও করে থাকেন। এদের অনেকেই পেনশন পাওয়ার যোগ্যতা অর্জনের পূর্বেই মৃত্যুবরণ করেন অথবা আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেন।

“অনেক ক্ষেত্রে পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি হিসেবে পরিগণিত সংশ্লিষ্ট সামরিক সদস্যের মৃত্যুজনিত অনুপস্থিতি অথবা স্থায়ী পঙ্গুত্বের কারণে তাদের পরিবারের ভরণ-পোষণ অত্যন্ত দুরূহ হয়ে পড়ে। এ অবস্থা নিরসনে আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ‘আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড’ গঠনের অনুরোধ জানিয়ে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের কাছে ২০১৫ সালের ২৫ আগস্ট একটি আবেদন করে।”

এ পরিস্থিতিতে আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি স্থাপনের যাবতীয় আইনি চাহিদা পূরণের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয় এবং ২০১৮ সালের ১৩ ডিসেম্বর আইডিআরএ’র কাছে পুনঃবিবেচনার জন্য বিলম্বের বিষয়ে বিস্তারিত ব্যাখা দেয়া হয়। এরপর চলতি বছর প্রধানমন্ত্রীর নীতিগত অনুমোদন পাওয়ার পর আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট থেকে আস্থা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের নিবন্ধনের বিষয়টি গত ৩০ জুলাই আবার আইডিআরএ’র কাছে উপস্থাপন করা হয়।

এরপর বিলম্বের বিষয়টি মার্জনা করে আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টকে চলতি বছরের ৭ আগস্ট শুনানিতে ডাকে আইডিআরএ। ওই শুনানির মাধ্যমে আইডিআরএ’র ২০১৫ সালের ১৫ অক্টোবরের আদেশ রহিত করে রিভিউ গ্রহণ করা হয়। সেই সঙ্গে আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টকে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করার সিদ্ধান্ত নেয় আইডিআরএ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here