আসছে ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকার মিউচুয়াল ফান্ড

0
478

ICB- 1স্টাফ রিপোর্টার : পুঁজিবাজারে আসছে ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকার মিউচুয়াল ফান্ড।ফান্ডটির সম্ভাব্য নাম দেয়া হতে পারে- প্রবাসী শিল্প বিনিয়োগ মিউচুয়াল ফান্ড।পুঁজিবাজারের ইতিহাসে প্রথম সরকারি উদ্যোগে শিল্প বিনিয়োগ মিউচুয়াল ফান্ড।

সরকারি উদ্যোগে ফান্ডটি বাজারজাত করা হলে যেমন শিল্প উদ্যেক্তারা উপকৃত হবেন, অন্যদিকে পুঁজিবাজার বেগবান ও শক্তিশালী হবে বলে জানিয়েছেন পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ঠরা।

এ বিষয়ে আইসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ফায়েকুজ্জামান বলেছেন, বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশীরা এই ফান্ডে বিনিয়োগের সুযোগ পেলে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহ বৃদ্ধি পাবে। যা অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিনি আরো জানান, প্রবাসী বাংলাদেশীরা বৈদেশিক মুদ্রায় এই ফান্ডের ইউনিট কিনতে পারবেন। একই সঙ্গে কেনা ইউনিট সার্টিফিকেট থেকে অর্জিত লভ্যাংশ কিংবা মুনাফা ইউনিট সার্টিফিকেট সমর্পন বাবদ অর্থ বিধি অনুযায়ী অনিবাসি বাংলাদেশীদের কাছে বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা পাঠাতে পারবে। এই মিউচুয়াল ফান্ডের ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, দেশে বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহ ক্রমশই বাড়ছে।

জাতীয় প্রবৃদ্ধির এই ধরনের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে ২০১৯ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি মধ্যম আয়ের দেশে উন্নিত হবে। দেশে মিউচুয়াল ফান্ড বাজারজাত করনে আইসিবি একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। কাজেই এই ফান্ডটি যদি আইসিবি দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করতে পারে তাহলে দেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

জানা গেছে, সম্প্রতি শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়ার সভাপতিত্বে স্থানীয় এক হোটেলে সরকারি-বেসরকারি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এ সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর, শিল্প সচিব, আইসিবি ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ অন্যা কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

আরো জানা গেছে,  প্রবাসী বাংলাদেশী ও দেশের আগ্রহী শিল্প উদ্যোক্তাদের দেশে শিল্প বিনিয়োগে উৎসাহিত করতেই এই  প্রবাসী শিল্প বিনিয়োগ মিউচুয়াল ফান্ড। এই ফান্ডকে প্রবাসীদের কাছে তুলে ধরতে রোড-শো করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে প্রবাসী বাংলাদেশীদের শিল্প বিনিয়োগের উৎসাহিত করার লক্ষ্যে এই মিউচুয়াল ফান্ডের পটভূমি ব্যাখ্যা করা হয়।

এর আগে অবশ্য প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতীয় শিল্প উন্নয়ন পরিষদের সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, অবকাঠামোসহ উৎপাদনমুখী বড় বড় সরকারি প্রকল্পগুলোর প্রকল্প ব্যয়কে পরিশোধিত মূলধনে রূপান্তর করে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি গঠন করা হবে। এসব কোম্পানির ইস্যু করা মূলধনের ৫০ শতাংশ বা তারও বেশি অংশ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশীদের শিল্প বিনিয়োগ উৎসাহিত করা হবে। এরই ধারাবাহিকতায় এই মিউচুয়াল ফান্ড।

এদিকে শিল্পমন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা বলেন, এই মিউচুয়াল ফান্ড গঠনের ব্যাপারে যত দ্রুত সম্ভব আরো একটি সভা করা হবে। যে সভায় উপস্থিত থাকবে সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তা ছাড়াও বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলোর প্রতিনিধি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here