আরএসআরএম আইপিওতে রিট নাটকেও ৬গুণ আবেদন

0
919

সিনিয়র রিপোর্টার : নানা প্রতিকূলতা মধ্যেও প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে রতনপুর স্টিল রি-রোলিং মিল লিমিটেডের (আরএসআরএম) অনেক সাড়া মিলেছে। ‘রিট নাটক’-এর মধ্যেও বিনিয়োগকারীরা  প্রায় ৬গুণ বা ৫৫৯ কোটি টাকার আবেদন করেছেন। কোম্পানি সূত্রে শুক্রবার এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সাধারণ বিনিয়োগকারী, ক্ষতিগ্রস্থ বিনিয়োগকারী ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডে জামা পড়েছে ৫৪৭ কোটি টাকা। বাকী  ১২ কোটি টাকা আর প্রবাসী বাংলাদেশীদের। এ পর্যন্ত ৫দশমিক ৫৯ শতাংশ আবেদন জমা পড়েছে। তবে এর পরিমাণ আরও বাড়তে পারে। কারণ তাদের আবেদন পৌঁছানোর জন্য ২৬ জুলাই, শনিবার পর্যন্ত সময় আছে।

প্রিমিয়ামসহ পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলন বন্ধ করতে আরএসআরএম স্টিলের বিরুদ্ধে আদালতে রিট করা হয়। কোম্পানির আইপিওর বিরুদ্ধে বিনিয়োগকারীদের পক্ষে ১৩ জুলাই রিট দায়ের করেন অ্যাডভোকেট তৌফিকুল ইসলাম (রিট পিটিশন নং ৬৬০৪/২০১৪)।

বিচারপতি মির্জা হোসাইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সরকারের যৌথ বেঞ্চে সোমবার মামলাটি উপস্থাপন করা হয়। বাদী  আদালতে তার পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেনি। পরে মামলাটি খারিজ করে দেন আদালত।

আইপিওতে আরএসআরএম এর ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করার কথা থাকলেও ইতোমধ্যে ৫৫৯ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়েছে।

আরএসআরএমের প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) ওবায়দুর রহমান বলেন, গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিএসইসিতে আমরা ৫৫৯ কোটি টাকার হিসেব জমা দিয়েছি। তবে এটি বেড়ে শেষ পর্যন্ত আবেদন ৬ গুণ ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি আশা করেন।

তিনি বলেন, আমরা গর্বিত যে, বিনিয়োগকারীরা আমাদের প্রতি আস্থা রেখেছেন। অবশ্যই এ আস্থার মর্যাদা রাখার সর্বাত্মক চেষ্টা করবো আমরা। তাদের এ সাড়া আমাদের আরও দায়িত্বশীল করবে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুলাই থেকে কোম্পানিটির আইপিও’র আবেদন জমা নেয়া শুরু হয়। নিবাসী বিনিয়োকারীরা ১৭ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করেন।  গত ৬ মে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) মঙ্গলবার আরএসআরএমের আইপিও অনুমোদন দেয়।

আইপিওতে কোম্পানিটি আড়াই কোটি শেয়ার ছাড়ছে। প্রতি শেয়ারে ৩০ টাকা প্রিমিয়ামসহ নেওয়া হচ্ছে ৪০ টাকা। আইপিওর মাধ্যমে কোম্পানিটি বাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। উত্তোলিত টাকা দিয়ে কোম্পানিটি চলতি মূলধন অর্থায়ন, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৩ সমাপ্ত বছরের হিসাব অনুসারে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ৬৩ পয়সা।  আর শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য বা এনএভি হয়েছে ৫৩ টাকা ৬৯ পয়সা।

এই কোম্পানির ইস্যুয়ার হিসেবে কাজ করছে জনতা ক্যাপিটাল অ্যন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এবং ট্রাস্ট ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

পেছনের খবর : আরএসআরএমের আইপিও নিয়ে নাটক, রিট খারিজ

আরো খবর : আরএসআরএমের আইপিও আবেদন রোববার থেকে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here