আনোয়ারুল কবির ভূঁইয়াকে অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত

0
238

এস বি ডেস্ক রিপোর্ট: শেয়ারবাজারের ভয়াবহ ধসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল কবির ভূইয়াকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। বিএসইসির ৪৮৫তম কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, এর আগে বড় ধরণের শাস্তি হতে পারে এমন আশঙ্কায় আনোয়ারুল কবির ভূইয়া অবসরে যাওয়ার জন্য বিএসইসির কাছে আবেদন করেন। আনোয়ারুল কবির ভূইয়ার আবেদনের প্রেক্ষিতে তাকে অবসর দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

গত বছরের ১ মার্চ শেয়ারবাজারের ভয়াবহ ধসের কারণে বিএসইসি কর্তৃক খন্দকার ইব্রাহিম খালেদের তদন্ত রিপোর্টে অভিযুক্ত বিএসইসির কর্মকর্তাদের অধিকতর তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ করে। ওই দিনই বিএসইসির এক জরুরী কমিশন সভায় আনোয়ারুল ভূইয়ার জড়িত থাকার বিষয়টি প্রমাণিত হওয়া তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

উল্লেখিত দন্ডাদেশটি আনোয়ারুল ভূইয়ার স্বাক্ষরেই ইস্যু করা হয়েছে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল কবির ভূইয়ার স্ত্রী রোখসানা আখতার এর নামে চারটি বিও একাউন্টের প্রমাণ পায়। এই অভিযোগে তার বিরুদ্ধে অবসরের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

পরবর্র্তীতে বিএসইসি আনোয়ারল কবির ভূইয়ার অভিযোগগুলো অধিক তদন্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এ সময় বিএসইসি দুই সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করে। কমিটির সদস্য হলো এসইসির হেলালউদ্দিন নিজামী ও আমজাদ হোসেন। এতে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল কবির ভূইয়ার শেয়ার কারসাজির প্রমাণিত হওয়ায় তাকে বিএসইসি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আর বিএসইসির অপর অভিযুক্ত সদস্য এটিএম তারিকুজ্জামনের অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে শেয়ারবাজারে ভয়াবহ ধসের কারণে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান খন্দকার ইব্রাহিম খালেদের নের্তৃত্বে এসইসি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। এর পর ইব্রাহিম খালেদ শেয়ারবাজার কারসাজির কারণ তদন্ত করে এর প্রতিবেদন অর্থমন্ত্রণালয়ে জমা দেন। কিন্তু এতে এসইসির কয়েক জন নির্বাহী পরিচালক ও সদস্যদের নাম আসলে তা অধিক তদন্ত করার  সিদ্ধান্ত হয়। যা আজ বৃহস্পতিবার বিএসইসির এক জরুরী সভায় প্রকাশ করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here