আইপিও প্রক্রিয়ায় ২৬টি কোম্পানি

0
10244

শাহীনুর ইসলাম : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) ২৬টি কোম্পানির আইপিও প্রসপেক্টাস জমা করা হয়েছে। কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজার থেকে মূলধন উত্তোলনের জন্য অনুমোদন প্রক্রিয়ায় রয়েছে। তবে প্রকাশিত নতুন গেজেটে ‘নো অবজেকশন’ লেটারে আটকা পড়ছে এসব কোম্পানি।

স্টক এক্সচেঞ্জের ‘নো অবজেকশন’ লেটার নিয়ে তৈরি হয়েছে নতুন জটিলতা। নতুন আইন অনুযায়ী কোম্পানিগুলোর ‘সক্ষতা যাচাই’ করতে স্টক এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে আবারো আবেদন করতে হবে।

পাইপলাইনে থাকা কোম্পানিগুলো হলো- আফতাব হ্যাচারি, রানার অটোমোবাইলস, সামসুল আল-আমিন রিয়েল এস্টেট, অ্যালায়েন্স হোল্ডিংস, আমান সিমেন্ট, এএনডি টেলিকম, বেঙ্গল পলি অ্যান্ড পেপার স্যাক, ডোরেন পাওয়ার জেনারেশনস অ্যান্ড সিস্টেমস, ড্রাগন সোয়েটার অ্যান্ড স্পিনিং, এভিয়েন্স ইন্স্যুরেন্স, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, গ্যালাক্সি সোয়েটার অ্যান্ড ইয়ার্ন ডায়িং।

তালিকায় আরো রয়েছে- আইএফসিও গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইলস, আইটি কনসালট্যান্টস, করিম স্পিনিং মিলস, লিড্স করপোরেশনস, মদিনা সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, মোহাম্মদ ইলিয়াস ব্রাদার্স পলি ম্যানুফ্যাকচারিং, মাইমকো জুট মিলস, ন্যাশনাল ফাইন্যান্স, অটবি, প্যাসিফিক ডেনিমস, ভিএফএস থ্রেট ডাইং, আমরা নেটওয়ার্কস, রিজেন্ট টেক্সটাইলস ও সুপ্রিম সিড।

বিএসইসি আইপিও নিয়ে ১২ জুলাই নতুন গেজেট প্রকাশ করেছে। নতুন আইন অনুযায়ী কোম্পানিগুলোকে স্টক এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ কোম্পানির সক্ষমতা যাচাই-বাছাই করে ‘নো অবজেকশন’ দিলে বিএসইসি আবেদন বিবেচনা করবে।

আইপিও অনুমোদন সম্পর্কে ডিএসইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্বপন কুমার বালা বলেন, অনুমোদনে আগ্রহী কোম্পানিগুলোকে প্রথমে স্টক এক্সচেঞ্জের কাছে আসতে হবে। তারপরে অন্য বিধি গ্রহণযোগ্য হবে।

তবে আইপিও অনুমোদনে ব্যাপক পরিবর্তন আসায় উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ লিস্টিং ডিপার্টমেন্টে আরও জনবল নিয়োগের উদ্যোগ নিয়েছে বলে বিশ্বস্থ সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

প্রকাশিত গেজেট দেখতে ক্লিক করুণ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here