আইপিও থেকে বাদ পড়ল ১৮টি কোম্পানি

0
3156

রাহেল আহমেদ শানু : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদনে নানা অসঙ্গতি বাড়ছে। পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণে তা ধরাও পড়ছে। যে কারণে আইপিও প্রক্রিয়া থেকে ২০টিকোম্পানিকে বাদ দিয়েছে শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

একই সঙ্গে কোম্পানিগুলোর আইপিও আবেদন ফেরত দেয়ার পাশাপাশি আর্থিক জরিমানাও করা হয়েছে।  তবে এখনো প্রায় ৪৫টি আইপিও প্রস্তাব কমিশনে জমা রয়েছে। নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আইপিও অনুমোদন থেকে বাদ পড়‍া কোম্পানিগুলো হচ্ছে— এলএসআই ইন্ডাস্ট্রিজ, এমএল ডায়িং, ক্রিস্টাল ইন্স্যুরেন্স, কেয়া কটন, কেয়া স্পিনিং মিলস, বিএমএসএল ইনভেস্টমেন্ট, রয়েল ডেনিম, কমার্স ব্যাংক, সাউথ এশিয়া ইন্স্যুরেন্স, ড্রাগন সোয়েটার অ্যান্ড স্পিনিং, আমান কটন ফেব্রিয়াস, এরিয়ান কেমিক্যালস, রিলায়েন্স ফিন্যান্স, সামিট শিপিং কোম্পানি, ইয়াকিন পলিমার, এনার্জি প্রিমা, আইটি কনসালট্যান্টস ও রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট।

এছাড়া মেট্রোসেম সিমেন্ট ও করিম স্পিনিং মিলস কর্তৃপক্ষ নিজে থেকেই আইপিও প্রস্তাব ফিরিয়ে নিয়েছে।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, অর্থ সংগ্রহের প্রস্তাবে কোম্পানির জমি সংক্রান্ত তথ্যে গরমিল, জাল দলিল, পরিচালকদের ঋণখেলাপি, বিভিন্ন অসঙ্গতির কারণে কোম্পানির আবেদন ফেরত দেয়া হয়েছে। এছাড়া দুর্বল মৌলভিত্তি ও পুরনো আর্থিক প্রতিবেদন দাখিলের কারণেও একাধিক কোম্পানির আইপিও প্রস্তাব ফেরত দেয়া হয়। চাহিদা মাফিক তথ্য প্রদানের ব্যর্থতার কারণেও কয়েকটি আইপিও আবেদন বিবেচনায় নেয়নি কমিশন। আবার ৩টি কোম্পানি নিজে থেকেই আইপিও প্রস্তাব ফেরত নিয়েছে।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ড্রাগন সোয়েটার অ্যান্ড স্পিনিং এবং আমান কটন কোম্পানি দুটি স্থায়ী সম্পদের তালিকার একটি অংশের  জাল দলিল প্রদান করে। এজন্য কমিশন উভয় কোম্পানিকে আর্থিক জরিমানাও করেছে। এছাড়া দুই কোম্পানির আইপিও প্রস্তাব ফেরত দেয়ার পাশাপাশি ইস্যু ম্যানেজার, সম্পদ পুনর্মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান এবং আর্থিক নিরীক্ষককেও আর্থিক জরিমানা করা হয়।

ফাইবার সাইন নামক কোম্পানিটি আইপিও আবেদন জমা দেয়। এরপর বিএসইসি কোম্পানিটির কাছে অতিরিক্ত তথ্য চেয়ে চিঠি দিলে কোম্পানিটি কোনো উত্তর দেয়নি। এ কারণে আইপিও আবেদন বাতিল করা হয়। সাউথ এশিয়া ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির দুই পরিচালক ঋণখেলাপি থাকায় তাদের বাদ দিয়ে নতুন করে আইপিও আবেদন করতে বলা হয়। কিন্তু কোম্পানিটি নতুন করে আইপিও আবেদন জমা দিতে ব্যর্থ হয়।

আর্থিক অস্বচ্ছতার কারণে রয়েল ডেনিম নামক কোম্পানির আইপিও আবেদন ফেরত দিয়েছে। কুইক রেন্টাল পাওয়ার প্লান্ট হওয়ায় এনার্জি প্রিমা কোম্পানির আইপিও আবেদন বাতিল করা হয়। কোম্পানিটিকে আরো অন্তত ৯বছরের জন্য বিদ্যুেকন্দ্র চালানো এবং সরকার বিদ্যুৎ কিনবে এমন চুক্তিপত্র আনার শর্ত দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কোম্পানিটি এ শর্ত পূরণ করতে পারেনি।

বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের মালিকানা নিয়ে বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বিরোধ এবং এ নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা থাকায় বিএসইসি কোম্পানির আবেদন বিবেচনায় নেয়নি। পরিশোধিত মূলধন স্বল্পতায় ক্রিস্টাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিটির আইপিও আটকা পড়েছে।

এদিকে আইপিও প্রস্তাবে বিভিন্ন অসঙ্গতির দায়ে জরিমানা করা হলেও পরবর্তী সময়ে সংশোধিত প্রস্তাব জমা দিলে তিনটি কোম্পানির শেয়ার ছাড়ার প্রস্তাবে সম্মতি দিয়েছে কমিশন।

এর আগে জমাকৃত প্রতিবেদনে নানা অসঙ্গতি ও অসত্য তথ্য দেয়ায় এপোলো ইস্পাত কমপ্লেক্স লিমিটেডকে জরিমানা করা হলেও পরবর্তী সময়ে এর আইপিও প্রস্তাবে সম্মতি দেয় কমিশন। যদিও এর পর অর্থমন্ত্রীর পরামর্শে কিছু দিনের জন্য ওই আইপিও চাঁদা সংগ্রহ স্থগিত রাখা হয়। এছাড়া জেনারেশন নেক্সট ফ্যাশন লিমিটেডের আইপিওর ক্ষেত্রেও প্রস্তাব ফেরত দেয়ার এক বছর পর শেয়ার ছেড়ে অর্থ সংগ্রহের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান বলেন, বিভিন্ন অসঙ্গতির জন্য কোম্পানিগুলোর আইপিও প্রস্তাব কমিশন বিবেচনা করেনি। তবে অসঙ্গতি দূর হলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির সংশোধিত প্রসপেক্টাস জমা দেয়ার সুযোগ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here