শাহীনুর ইসলাম : নতুন এবং পুরাতন মিলে ৩১টি কোম্পানি পুঁজিবাজারে আসছে। ইতোমধ্যে অনেক কোম্পানি প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেছে। পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে কোম্পানিগুলো।

পপুলার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড : বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবাজার থেকে ৭০ কোটি টাকা উত্তোলন করতে চায় । যার বড় একটি অংশ কোম্পানির ব্যবসা সম্প্রসারণের কাজে লাগানো হবে। এর মাধ্যমে ওষুধ শিল্পে নিজেদের অবস্থান আরও শক্ত করতে চায় কোম্পানিটি। আগামী ২৪ অক্টোবর রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে কোম্পানিটির রোড শো সম্পন্ন হবে।

ইনডেক্স এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবাজারে আসতে আগামী ১৮ অক্টোবর রোড শো রাজধানীর ট্রাস্ট মিলনায়তনে সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত হবে। কোম্পানিটিকে আইপিওতে আনতে ইস্যু ম্যানেজারের দায়িত্ব নিয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড ও ইবিএল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

রবি আজিয়াটা : চলতি বছরের শেষে পুঁজিবাজারে আসছে টেলিকম খাতের অন্যতম বড় কোম্পানি রবি। কোম্পানিটির প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা (সিএফও) প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে আসার আভাস দিয়েছেন। সম্প্রতি চ্যারি টিভিটিতে রবি-এয়ারটেল একীভূত হওয়া প্রসঙ্গে আলোকপাত করলে আইপিওতে আমার কথা বলেন। মালয়েশিয়ায় শুরু হওয়া ‘রিজিওনাল মিডিয়া সামিট’ শীর্ষক তিন দিনের এক অনুষ্ঠানে এ কথা জানানো হয়।

বেঙ্গল পলি অ্যান্ড পেপার স্যাক লিমিটেড : বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবাজারে আসতে কোম্পানিটি রাজধানীর গুলশানে লেকশোর হোটেলে ৯ অক্টোবর, রোববার সন্ধ্যা ৭টায় রোড শো সম্পন্ন করেছে। ৩০ জুন ২০১৬ হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদনে বাজারে আসতে চায় কোম্পানিটি। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির বিক্রির পরিমাণ ছিল ৮২ কোটি ১৮ লাখ ১১ হাজার টাকা। কর পরবর্তী আয় হয়েছে ৭ কোটি ৫৯ লাখ ১৩ হাজার টাকা। এ সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৭১ পয়সা ও শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ৩৮ টাকা ৬৮ পয়সা।

রানার অটোমোবাইলস লিমিটেড : পুঁজিবাজারে আসছে মোটরসাইকেল নির্মাতা কোম্পানি রানার। বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে কোম্পানিটি প্রায় ১০০ কোটি টাকা তুলে নিতে চায়। আগামী ১৯ অক্টোবর সোনারগাঁও হোটেলে এজন্য রোড শো সম্পন্ন করা হবে। বর্তমানে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৯৪ কোটি টাকা।

ডেল্টা হসপিটাল লিমিটেড : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বাজারে শেয়ার ছেড়ে ৫০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে বাজারে আসতে কোম্পানিটি ইতোমধ্যে রোড শো সম্পন্ন করেছে।

ফাইবার অ্যাট হোম লিমিটেড : পুঁজিবাজারে আসতে প্রস্তুতি নিচ্ছে অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক নামে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) কাছ থেকে প্রাপ্ত লাইসেন্সের শর্ত পরিপালনে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হবে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের কোম্পানিটি। কেম্পানির নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র এমন তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এ্যাস্কয়ার নিট কম্পোজিট লিমিটেড : প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুঁজিবাজারে আসতে চায় কোম্পানিটি। এ জন্য আগামীতে রোড শো সম্পন্ন করতে কোম্পানির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে রয়েছে প্রাইম ফিন্যান্স ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড। আর রেজিস্ট্রার টু দি ইস্যু হিসেবে রয়েছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

আমান কটন ফাইবার্স : আমান গ্রুপের প্রতিষ্ঠান আমান কটন ফাইবার্স লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) প্রসপেক্টাস নিয়ন্ত্রক সংস্থায় জমা করা হয়েছে। ২৮ জুলাই বিকালে প্রসপেক্টাস জমা করা হয়েছে বলে কোম্পানির ইস্যু ম্যানেজার আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের ঊর্ধতন কর্মকর্তা ফজলুর হক স্টক বাংলাদেশকে এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, আমান কটন ফাইবার্স লিমিটেডের প্রসপেক্টাস জমা করা হয়েছে। কোম্পানিটি পুঁজিবাজার থেকে ৮০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।

বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড : প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের মাধ্যমে (আইপিও) বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে পুজিঁবাজারে তালিকাভুক্ত থেকে ২০০ কোটি টাকা উত্তোলন করবে কোম্পানিটি। এ লক্ষ্যে মূলধন সংগ্রহে গত ৩০ জুন রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে রোড শো সম্পন্ন হয়।

অনুষ্ঠানে কোম্পানির বর্তমান অবস্থা ও ভবিষ্যত ব্যবসার পরিকল্পনার বিভিন্ন বিষয়ে বিশ্লেষণমূলক তথ্য ও উপাত্ত তুলে ধরেন চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট অফিসার তোফায়েল হোসেন।

তিনি বলেন, বসুন্ধরা পেপার মিলসের অনুমোদিত মূলধন ৫০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে পরিশোধিত মূলধন ১৪৭ কোটি টাকা। ১৯৯৭ সাল থেকে বসুন্ধরা পেপার মিলস বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরু করে। ২০১১ সাল থেকে ২১টি দেশে বসুন্ধরা পেপার মিলস উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি শুরু করে।

এডিএন টেলিকম লিমিটেড : প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে মূলধন সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশের অন্যতম তথ্যপ্রযুক্তির প্রতিষ্ঠান এডিএন। ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি আইপিওতে আসতে চুক্তি স্বাক্ষরও করেছে।

ইস্যু ব্যবস্থাপক হিসেবে রাষ্ট্রায়ত্ব প্রতিষ্ঠান আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের (আইসিএমএল) সঙ্গে ৫ জুন চুক্তি করেছে এডিএন টেলিকম। তবে কি পরিমাণ শেয়ার ছেড়ে কোন প্রক্রিয়ায় কতো টাকা কোম্পানি উত্তোলন করতে চায় তা জানা যায়নি।

পাইপলাইনে রয়েছে আরো কোম্পানি কোম্পানি। তা হলো- আফতাব হ্যাচারি, সামসুল আল-আমিন রিয়েল এস্টেট, অ্যালায়েন্স হোল্ডিংস, আমান সিমেন্ট, এভিয়েন্স ইন্স্যুরেন্স, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, গ্যালাক্সি সোয়েটার অ্যান্ড ইয়ার্ন ডায়িং, এনার্জিপ্যাক পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড।

তালিকায় আরো রয়েছে-  য্যাংকন মোটরবাইকস লিমিটেড, রাষ্ট্রায়ত্ব কোম্পানি আশুগঞ্জ পাওয়ার, আইএফসিও গার্মেন্টস অ্যান্ড টেক্সটাইলস, আইটি কনসালট্যান্টস, করিম স্পিনিং মিলস, লিডস করপোরেশনস, মদিনা সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ, মোহাম্মদ ইলিয়াস ব্রাদার্স পলি ম্যানুফ্যাকচারিং, মাইমকো জুট মিলস, ন্যাশনাল ফাইন্যান্স, অটবি, ভিএফএস থ্রেট ডাইং ও সুপ্রিম সিড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here