আইপিও অনুমোদন পাওয়া ফার গ্রুপের এমএল ডাইংয়ের আমলনামা

0
2579

সিনিয়র রিপোর্টার : ফার গ্রুপের একটি কোম্পানি এমএল ডাইং লিমিটেড। প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে  পুঁজিবাজার থেকে ২০ কোটি টাকা উত্তোলন করার অনুমোদন পেয়েছে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি সাধারণ শেয়ার ছাড়বে কোম্পানিটি।

মাজার ব্যাপার হলো- ফারগ্রুপের ৮টি কোম্পানির মধ্যে দুটি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রয়েছে। চলতি বছরে নতুন আরো  কোম্পানি হিসেবে এমএল ডাইং লিমিটেড আইপিও অনুমোদন পেয়েছে।

ফার গ্রুপের ৮টি কোম্পানির চিত্র প্রকাশ

ইতোপূর্বে গ্রুপের তালিকাভুক্ত হওয়া কোম্পানিগুলো হলো- ফার ক্যামিকেলস লিমিটেড ও আরএন স্পিনিং মিলস লিমিটেড। নতুন করে তৃতীয় কোম্পানি হিসেবে ২০ কোটি টাকা উত্তোলনের অনুমোদন পেয়েছে এমএল ডাইং লিমিটেড। (নিচের প্রোসপেক্টাস দেখুন)

উত্তোলিত টাকা দিয়ে কোম্পানির উৎপাদন বৃদ্ধিতে যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং স্থাপন করা হবে। একই সঙ্গে আইপিওতে খরচ করা হবে বলে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কমিশন তথ্য প্রকাশ করে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আরো অনেক গ্রুপের একাধিক কোম্পানি রয়েছে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- বিবিএস গ্রুপ, বিএসআরএম গ্রুপ, আমরাটেক গ্রুপ, আমান গ্রুপ, আলিফ গ্রুপ, ফার গ্রুপসহ আরো অনেক।

মালিবাগের চৌধুরী পাড়ায় ১৮ তলা ‘বেটার লাইফ হাসপাতাল’ ভবন

ফার গ্রুপের কোম্পানিটি সম্পর্কে জানা গেছে, রাজধানীর মালিবাগের চৌধুরী পাড়ায় ১৮ তলা নিজস্ব ভবনে গ্রুপের নিজস্ব অফিস। তবে দু’বছর আগে এখান থেকে আরএন স্পিনিং ও এমএল ডাইং লিমিটেডের অফিস গুলশানের নিকেতনে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

কারণ হিসেবে জানা গেছে, ফার গ্রুপের নিজস্ব এ ভবনে ‘বেটার লাইফ হাসপাতাল’ তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। দুবছর আগে কাজ শুরু হলেও বিভিন্ন কারণে আজো সম্পন্ন হয়নি। অন্যদিকে কবে নাগাদ শেষ হবে বলতে পারছে না কর্তৃপক্ষ।

একই সঙ্গে সে সময় এ ভবন থেকে ফ্যামিলি টেক্সটাইল লিমিটেডের অফিসও গুলশানের নিকেতনে স্থানান্তর করা হয়।

ফার গ্রুপেরে কোম্পানিটি সম্পর্কে জানতে চাইলে কোম্পানি সেক্রেটারি এ কে এম আতিকুর রহমান বৃহস্পতিবার বলেন, গ্রুপের সব কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ আলাদা। আগে গ্রুপের অফিস এক ভবনে (এমএল টাওয়ার, চৌধুরীপাড়া, মালিবাগ) ছিল, পরে তা সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

‘আরএন স্পিনিং মিলস লিমিটেডের কারখানা কুমিল্লায়, আর আমাদের মংমনসিংহের ভালুকায় রয়েছে। গ্রুপ এক হলেও কারখানা অফিস এবং পরিচালনা পর্যদ আলাদা রয়েছে।’

এমডি গোলাম আজম চৌধুরী

২০০১ সালে চালু হওয়া কোম্পানির এমডি হলেন গোলাম আজম চৌধুরী। ভালুকার কারখানায় সব ধরনের সোয়েটার এবং নিট ইয়েন (হ্যাকা, শঙ্কু এবং টুকরো ডাইয়ের ডাইড) উৎপাদন করা হয়। উৎপাদন সক্ষমতা প্রতিদিন ১৬ টন। ফ্যাক্টরিতে মোট ৩ লাখ স্কয়ার ফিট স্থানে এই উৎপাদন করা হয়।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের অনুকূলে মতিঝিল শাখায় কোম্পানির নামে কি পরিমাণ ঋণ রয়েছে জানতে চাইলে এ কে এম আতিকুর রহমান পরে জানানো হবে বলা হলেও রোববার পর্যন্ত তা জানানো হয়নি।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরে পুনর্মূল্যায়ন ছাড়া শেয়ার প্রতি নেট অ্যাসেট ভ্যালু হয়েছে ২৩ টাকা ৭১ পয়সা। আর শেয়ার প্রতি ভারিত গড় হারে আয় হয়েছে ২ টাকা ৩৫ পয়সা।

উল্লেখ্য, ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এনবিএল ক্যাপিটাল অ্যান্ড ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট ও রূপালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here