অগাস্ট-নভেম্বর ‘সুনামি’র ১০৩ দিন!

2
1874

চলতি বছরের ২ আগস্ট থেকে ১২ই নভেম্বর, দিনপঞ্জিকা হিসেবে মাত্র ১০৩ দিন। অল্প দিনেই দেশের শেয়ার বাজারে রীতিমত সুনামি বয়ে গেছে। ঢাকার বাজারে সূচক পড়েছে ৪২৮ পয়েন্ট এবং বাজার মূলধন কমেছে প্রায় ৩২ হাজার কোটি টাকা!

DSEX ইনডেক্স করুণ, অবস্থা ব্যাখ্যা করা অক্ষম। শতকরা হিসেবে ইনডেক্স মাত্র ৮.৮ শতাংশ কমলেও ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের ক্ষতির পরিমাণ অনেক অনেক বেশি। সুনামীতে অনেকে তাদের মোট বিনিয়োগের ৩০-৩৫% পর্যন্ত হারিয়াছেন।

মিনি ধসের কোন যৌক্তিক কারণ আছে বা নেই। বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী হিসেবে ব্যাংক ও তাদের সাবসিডিয়ারী মার্চেন্ট বাংকগুলোর বিনিয়োগ নিয়ে বা সমন্বয়ের দাবি আদায়ে এমন দুঃসহ পরিস্থিতি তৈরি। এতে জিম্মি করা হয়েছে ক্ষদ্র বিনিয়োগকারীদের।

সুনামিতে বড় পুঁজির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা একঢিলে দুটি পাখি মারার ফন্দি করেছে। একদিকে তাদের কাঙ্ক্ষিত এক্সপোজার লিমিট এবং বর্ধিত সময়ের দাবী আদায়।

অপরদিকে দাবী পূরণ শেষে বাজার ভালো হলে লাভও তারা বুঝে নেবে। কারণ, ধসের মূলে বড় ক্রেতা-বিক্রেতা উভয় ভূমিকাতেই ছিল প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। প্রথমে তারা সেল প্রেসার দিয়ে পেনিক তৈরি করেছে। সাধারণ বিনিয়োগকারীরা দিশেহারা হয়ে বিক্রি শুরু করলে তারাই আবার শেয়ার কম দামে অনেক কিনেছে। খুবই সাধারণ উপায়ে তাদের বিনিয়োগ ঝুঁকি কমিয়ে নিয়েছে।

ধরুণ, ৬০ টাকার ১০০০ স্টক আপনি ১০ টাকা লসে সেল দিয়ে ওই কোম্পানির ১৬৫০ টি স্টক যদি আবার ৩০ টাকায় কিনে নিতে পারেন, তবে কেমন হয়?

দুবার ক্রয়-বিক্রয়ের ব্রোকারেজ কমিশন! আপনার নতুন কেনা স্টকগুলোর গড়মূল্য দাঁড়াবে ৩৬ টাকা! কী আশ্চর্য হচ্ছেন? কত সহজে আপনি গড় ক্রয় মূল্য ৬০ টাকা থেকে ৩৬ টাকায় নামিয়ে আনলেন। এমন কাজ করেছে অনেক ইন্সটিটিউশন।

এবার শুধু এক্সপোজার লিমিটের দাবি আদায় হলেই ষোলকলা পূর্ণ।

ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী হিসেবে আমাদের প্রধান দুর্বলতা ৩টি। (ক) বাজারে প্রভাব বিস্তার করার মত বড় পুঁজির অভাব। (খ) প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মত জোটবদ্ধ না হতে পারা এবং (গ)  অল্পতেই কাতর হয়ে পড়া।

ফলে শেয়ার বাজারে কালে-ভদ্রে লাভের মুখ দেখলেও ক্ষতির ভাগীদার সব সময়ই সাধারণরা।

 

2 COMMENTS

  1. কারসাজিকারী বিনিয়োগকারীদের উদর পূর্ণ আছে, তার জন্য খাবার টেবিলে দাও। ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের গ্রাস কেড়ে নাও। ওদের উদর পূর্ণ করা দরকার নেই।
    শেয়ার বাজারের অবস্থা- যার আছে তাকে দাও। যার নাই তার যা আছে তাও কেড়ে নাও।
    লেখালেখি করে শেয়ার বাজারে পজেটিভ অবস্থায় নিয়ে আসতে আসতে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের অবস্থা বলার অপেক্ষা রাখে না। বিগত বছরের আলোকে শেয়ার বাজার ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here